পাতা:করিম সেখ - জলধর সেন.pdf/১৬

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


So করিম সেখ সন্মতি প্ৰদান করিল। করিমদিগের একখানি ছােট নৌক৷ ছিল, সেই নৌকায় চড়িয়া উভয়ে যাইবে । গ্রামের আরও দুই একটী যুবক করিম ও বসিরের সহিত যাইবার ইচ্ছা! প্ৰকাশ করিল, কিন্তু নৌকা ছোট বলিয়া করিম তাহদের প্ৰস্তাবে অসম্মতি প্ৰকাশ করিল। এ যাত্ৰা তাহারা দুই বন্ধুতেই ধান কাটিতে যাইবে, আর কাহাকেও সঙ্গে লইবে না । বসির করিমকে বলিল, “করিম ভাই, যেমন করিয়া হ’ক প্ৰায় একমাস বাড়ী ছাড়া থাকতে হবে। এই একমাস আমার মা ও স্ত্রী কি খেয়ে বাচবে, তার ত কিছুই ব্যবস্থা করতে পারছি না। কেহ যে দু দশ টাকা ধার দিবে। তাহা ত বোধ হয় না । এক উপায় আছে, আমার স্ত্রীর গায়ে যে দুই তিনখানি রূপার গহনা আছে, তাই এনে তোমাকে দিচ্ছি ; তুমি কোন খানে রেখে কয়েকটা টাকা এনে দাও। তাঁহারই কিছু আমরা সঙ্গে নিয়ে যাই ; আর কিছু মায়ের হাতে দিয়ে যাই, তাই দিয়ে কোন রকমে এই একমাস সংসার চলুক।” করিম বলিল “সে কি কথা ! বৌয়ের গায়ের গহনা বন্ধক দিতে হবে কেন ? সে কিছুতেই হবে না। তুমি ভেবো না ; डूमि ७भू शा७ग्राद्ध अछि अडड श्७ ।” বসির বলিল “তোমার অবস্থা ত সকলই জানি। তুমি এত টাকা কোথায় পাবে ?” করিম বলিল, “তুমি সে ভাবনা ছেড়ে দাও না । ক’ল তোমার টাকা পেলেই তা হল ? তার পর তুমি যখন পার টাকা aft sS '