পাতা:করিম সেখ - জলধর সেন.pdf/৪৪

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


var করিম সেখ দৃষ্টিতে আর একবার সেই ছায়ামূৰ্ত্তির দিকে চাহিল। ছায়া যেন . हिब्रख्ष्थंग्ज ! আবার যেন বজ্ৰগম্ভীর স্বরে ধবনিত হইল “করিম ” করিমের তখন নিঃশ্বাস রোধ হইবার উপক্রম হইল ; আতঙ্কে দেহ ফুলিয়া উঠিল। সে আর সেখানে দাড়াইয়া থাকিতে পারিল না। সে তখন একটা বিকট চীৎকার করিয়া দ্রুতবেগে ঘর হইতে নিশুক্রান্ত হইল। মূহুৰ্ত্তমধ্যে বাহিরের ঘোর অন্ধকারে তাহার মূৰ্ত্তি অন্তহিত হইয়া গেল। So করিম হঠাৎ কেন চীৎকার করিয়া উঠিল এবং দা ফেলিয়া উন্মত্তের মত চলিয়া গেল তাহা বসিরের স্ত্রী ও মাতা বুঝিতে পারিল না । বুড়ী তখনও বিছানায় বসিয়া কঁাপিতেছিল। বসিরের স্ত্রীও এই অতর্কিত আক্রমণে কেমন হইয়া গিয়াছিল। নিশ্চল প্ৰতিমার মত সে বেড়া ধরিয়া দাড়াইয়া রহিল। এমন সময় নিদ্রিত শিশুটী কঁাদিয়া উঠিল। তখন যেন তাহার সংজ্ঞা ফিরিয়া আসিল ; সে তাড়াতাড়ি ছেলেটিকে বুকের মধ্যে জড়াইয়া ধরিল। এত দিন সে বসিরের জন্য কঁদে নাই ; এতদিন তাহার কঁদিবার শক্তি ছিল না। আজ এই বিপদে তাহার চক্ষু দিয়া দরব্দর ধারে জল বাহির হইল ; তাহার বুক ফাটিয়া যাইতে লাগিল। আজ যদি তাহার স্বামী বঁাচিয়া থাকিত, তাহা হইলে কি নরাধম করিম তাহাকে এমনভাব লাহিত করিতে পারিত ? ? ?