পাতা:করিম সেখ - জলধর সেন.pdf/৫৯

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


করিম সেখ @S。 এমন ভাবে সে অধিকক্ষণ থাকিতে পারিল না। সে তখন উঠিবার জন্য আর একবার চেষ্টা করিল। এবার তাহার চেষ্টা ফলবতী হইল। সে অতি কষ্টে বৃক্ষের বাহুবন্ধন হইতে শরীরটাকে মুক্ত করিয়া উঠিয়া বসিল ; :তাহার পর কাপড়খানি টানিতে লাগিল ; কিন্তু কাপড়খানি এমন ভাবে গাছের সহিত জড়াইয়া গিয়াছিল যে, উঠিয়া দাড়াইয়া এবং উলঙ্গ হইয়া। তবে কাপড়ের অপর ভাগ গাছ হইতে ছাড়াইয়া লিওয়া যাইতে পারে। তখনও তাহার সে শক্তি হয় নাই ; সে হাত পা নাড়িতেছে बीछे, किङ्, দাড়াইবার শক্তি তাহার তখনও আসে নাই। অগত্যা সে খানিকক্ষণ চুপ করিয়া বসিয়া রহিল এবং প্রতি মুহুর্তেই কুম্ভীর বা ব্যান্ত্রের আগমন প্ৰতীক্ষা করিতে লাগিল । ধীরে ধীরে পূর্ব দিকে আলোকরেখা দেখা দিল। তখন তাহার হৃদয়ে কে যেন অধিকতর বলের সঞ্চার করিয়া দিল । সে প্রাণপণ চেষ্টায় উঠিয়া দাড়াইল এবং উলঙ্গ হইয়া কাপড়ের অপরাংশ গাছের ডাল হইতে ছাড়াইয়া লইল । একবার মনে করিল, কাপড়খানিতে কাদা লাগিয়াছে, জলে ধুইয়া। তবে পরিবে ; কিন্তু পরীক্ষণেই কুম্ভীরের কথা মনে হওয়ায় সে সেই কাদামাখা কাপড়খানিই ভাল করিয়া পরিধান করিল। তাহার পর ধীরে ধীরে নদীর মধ্য হইতে উপরে উঠতে লাগিল। উপরে উঠিয়া দেখে প্ৰকাণ্ড অরণ্য, শুধু ছোট ছোট কঁাটা গাছ, ঘাস, আর মধ্যে মধ্যে বড় বড় গাছ ; জনপ্ৰাণীও সেখানে নাই । সে যে বাঘের ভয় করিয়াছিল, তাহার কোন সাড়াশব্দও সে পাইল না ; শুধু বনের পাখীগুলি তখন নিদ্রাভঙ্গে প্রভাতী গাইতেছে। বসিয় সেইস্থানে বসিয়া পড়িল। নদীর মধ্য হইতে এইটুকু