পাতা:করিম সেখ - জলধর সেন.pdf/৬০

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


68 করিম সেখ উঠিয়াই তাহার শরীর অবসন্ন হইয়াছিল। সেইস্থানে বসিয়া বসিয়া সে আকাশ পাতাল ভাবিতে লাগিল ; বন্ধুর বিশ্বাসঘাতকতা, শঠতা সম্বন্ধে তাহার। তখন আর বিন্দুমাত্ৰ সংশয় রহিল না। অগ্নিশালাকার ন্যায় এ চিন্তা তাহার দুর্বল মস্তিষ্ককে বিদ্ধ করিতেছিল। সে যন্ত্রণায় অধীর হইয়া দুই হন্তে বক্ষ চাপিয়া ধরিল। তারপর সে দুই হাঁটুর মধ্যে মাথা রাখিয়া ভাবিতে লাগিল। । এই ভাবে কিছুক্ষণ গেলে, সে মাথা তুলিয়া দেখিল গাছের মাথায় প্ৰাতঃকালের রৌদ্র চিক চিক্‌ করিতেছে। নদীর দিকে চাহিয়া দেখিল, কোথাও একখানি নৌকার চিহ্নও নাই। তখন সে ধীরে ধীরে উঠিয়া নদীর তীরে তীরে উত্তর মুখে যাইতে লাগিল । S8, বসির কখন এ অঞ্চলে আসে নাই, এইবার প্রথম সে বাদায় ধান কাটিতে আসিয়াছিল। ধান কাটা ত হইল, এখন সে কোথায় যায় ? তাহার শরীরের যে প্ৰকার অবস্থা তাহাতে আর এক পদও চলিতে ইচ্ছা করিতেছে না ; কিন্তু এই জঙ্গলের aCe বসিয়া থাকিয়া, সে কি করিবে ? সে ধীরে ধীরে চলিতে লাগিল। পূৰ্ব্ব দিনইকা'এগারটার সময় সে দুইটা ভাত মুখে দিয়াছিল, তাহার পর রাত্ৰিতে ভাত খাইতে বসিয়াছিল মাত্র ; তাহার পরই সে অচৈতন্য হইয়া পড়িয়াছিল। তাহার পর জীবন ও মৃত্যুর ঘোরতর ংগ্রাম। শরীর দুর্বল, অবসর হইয়া পড়িয়াছিল। ক্ষুধায় তাহাকে অত্যন্ত কাতর করিয়া ফেলিল। বসির দুই চারি পা।