পাতা:করিম সেখ - জলধর সেন.pdf/৬৬

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


V9o করিম সেখ সে বলিল “বসির সেখ।” বাবু জিজ্ঞাসা করিলে, “বসূিত্ৰ, তােমার কি অসুখী হােয়েছে?” বসির বলিল “অসুখ-কৈ, না-অসুখত হয় নি। জলে 6°igख् gिअछिव्ााभ ।” বাবু বলিলেন “আচ্ছা, এখন আর কথা বোলো না, তুমি শুয়ে থাক।” এই বলিয়া তিনি নীেকার মধ্যে গেলেন। নৌকায় একঘটি কঁাচ দুগ্ধ ছিল ; তিনি তাহা লইয়া বাহিরে আসিলেন এবং অধরকে বলিলেন “অধরা, উনানটা জ্বালতে পারিস? তা হ’লে এই দুধ টুকু জাল দিয়ে ওকে খাওয়ান যায়।” মাৰী রামমােহন দেখিল মহা বিপদ। এখন উনন জ্বাল, দুধ জাল দেও, ওকে খাওয়াও । এই সব করিতে করিতেই ত বেলা তিনটে বেজে যাবে। বেচারীদের তখনও স্নান আহার হয় নাই । রামমোহন বলিল “বাবু, দুধ আর, জ্বাল দিয়ে কাজ নেই ; ওকে একটু কঁাচ দুধই খেতে দিন। তাই খেয়ে শুয়ে থাক । এদিকে বেলা যে আড়াই পহর। আর দুই বাক গেলেই কাছারীতে উঠতে পারবো ; তখন ওকে খাওয়ালেই হবে।” বাবু বুঝিলেন রামমোহনের কথাই ঠিক। তিনি তখন বলিলেন “তবে তাই হােক। বসির, তুমি এই দুৰ্ঘটুকু খেয়ে ফেল। ওরে অধরা ফটকে, যা, যা, গুণ ধরগে। খুব টেনে যাস। রামমোহন, নৌকো ছেড়ে দে।” স্কুলে একটু দুগ্ধ পান করিল, সবটা থাইতে ফটিক ও অধর গুণ * ধরিল, রামমোহন নৌকা ছাড়িয়া দিল । বাবুঢ়ীর নাম শ্ৰীবিপিনবিহারী ঘোষ। তিনি কলিকাতার চৌধুরী