পাতা:করিম সেখ - জলধর সেন.pdf/৬৭

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


করিম সেখ VS বাবুদের আবাদের নায়েব। গোকুলপুরে কাছারীবাড়ী। বিপিন বাবু একটা আবাদ দেখিতে গিয়াছিলেন। এখন কাছারীতে ফিরিতেছেন । যেখানে পড়িয়া ছিল, সেখান হইতে গোকুলপুরের কাছারী মাইল দুই দূরে। জমিদারের নায়েবেরা সাধারণতঃ যে প্ৰকৃতির লোক হইয়া থাকে বিপিন বাবু তেমন ছিলেন না। তিনি লেখাপড়ার ধার ধারিতেন। এল, এ ফেল করিয়া বৎসরখানেক সেনসাস আফিসে কাজ করিয়াছিলেন। তাহার পর কুড়ি টাকা বেতনে কলিকাতা মিউনিসিপালিটীতে কেরাণীগিরি করিয়াছিলেন। সেই সময়ে তিনি চৌধুরী বাড়ীর একটী ছেলের প্রাইভেট মাষ্টারী করিতেন। এই উপলক্ষেই চৌধুরী বাড়ীর সহিত র্তাহার পরিচয় হয়। র্তাহার স্বভাব চরিত্র দেখিয়া ও বিদ্যাবুদ্ধির পরিচয় পাইয়া বড় চৌধুরী মহাশয় বিশেষ সন্তুষ্ট হন। তাহার পর যখন গোকুলপুরের কাছারীর | নায়েবী পদ খালি হয় তখন বিপিন বাবুকেই চৌধুরী মহাশয় ঐ কাৰ্য্যে নিযুক্ত করেন। বিপিন বাবু তিন বৎসর এই নায়েবী করিতে ৷ শীতকালে মাস দুইয়ের ছুটী পান ; সেই সময় বাড়ী যান ; বাকী বারমাস গোকুলপুরেই থাকেন। বাদার মধ্যে কাছারীবাড়ীতে পরিবার লইয়া থাকা নানা কারণে অসুবিধাজনক মনে করিয়া তিনি কখনও কাছারীতে পরিবার লইয়া বাস করেন না, একাকীই থাকেন। তঁহার সদয় ব্যবহারে প্রজারা খুব সন্তুষ্ট । জমিদার বাবুও বিপিন বাবুর। কাৰ্য্যদক্ষতায় বিশেষ খুলী। বিপিন বাবু, যে দুপিয়সা উপরি লইতেন না। তাহা নহে; কিন্তু তিনি প্ৰজা বা জমিদার কাহারও সৰ্ব্বনাশ বা ক্ষতি করিয়া কখনও এক পয়সাও লাইতেন না । এই জন্যই সকলে তাঁহাকে বিশেষ শ্ৰদ্ধা করিত। ... ."