পাতা:করিম সেখ - জলধর সেন.pdf/৮

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


R করিম সেখ পূৰ্বপুরুষের যখন কোন সংস্রবই ছিল না, তাহদের বাপদাদারা যখন ঐ দেবীর সহিত কোন প্ৰকার সম্বন্ধ না পাতাইয়া এতকাল সুখে সচ্ছন্দে ঘরকন্না করিয়া আসিয়াছেন এবং এখনও করিতেছেন, তখন এই সনাতন প্রথার অন্যথাচরণ করা যে কদাচ কৰ্ত্তব্য নহে, একথা তাহারা বেশ বুঝিত। তাহাদের বাপদাদারা যাহা করিয়াছে : 43 করিতেছে, সেই গোরক্ষণ, চাষের কাজ প্রভৃতিই যে তাঁহাদের একমাত্ৰ কৰ্ত্তব্য, করিম ও বসির এই শিক্ষাই লাভ করিয়াছিল। যখন তাহারা ছোট ছিল, তখন প্ৰাতঃকালে তাহদের কোন কাজ ছিল না। একটু বেলা হইলে পান্ত ভাত ও যাহা কিছু তরকারি থাকিত তাহাই আহার করিয়া গরুর পালি লইয়া তাহারা মাঠে যাইত । তাহার পর আড়াই প্রহর বেলায় বাড়ীতে আসিয়া তাড়াতাড়ি ভাত খাইয়া আবার মাঠে যাইত ; অপরাহ্নকালে গরুর পােল লইয়া বাড়ী আদিত। তাহার পর তাহাদের ছুটী। তখন কোন দিন বা করিম বসিরাদির বাড়ী আসিত, কোন দিন বা বসিরাদি করিমদিগের বাড়ী গিয়া সন্ধ্যা পৰ্য্যন্ত খেলা করিত ; কোন দিন বা পাড়ায় বেড়াইতে যাইত । যখন তাহারা বড় কইল, তখন বাপ চাচার সঙ্গে তাহাদিগকেও চাষের কাজ করিতে হইত। সে সময় দিনমানে অনেক সময় করিমের সহিত বসিরাদির সাক্ষাৎ হইবার সুযোগ হইত না । তাহাদের জমি ভিন্ন ভিন্ন মাঠে ছিল, সারাদিন সেইখানে কাজ কৰ্ম্ম করিতে হইত। তাহার পর সন্ধ্যার পূর্বে বাড়ীতে আসিয়া দুই বন্ধুতে মিলিত হইত এবং অনেক রাত্ৰি পৰ্য্যন্ত খেলা গল্প প্ৰভৃতিতে সময় অতিবাহিত হইত। এমনও অনেক দিন হইত যে, একজন আর একজনের বাড়ীতেই রাত্ৰি কাটাইয়া দিত । তাহাদের