পাতা:করিম সেখ - জলধর সেন.pdf/৯৫

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


করিম সেখ। bነጎጵ§ নিৰ্বাকভাবে বসিরের দিকে চাহিয়াছিল। যখন দেখিল ইহা স্বামীর প্ৰেতাত্মা নহে স্বামী, তখন সে দ্রুতপদে জল আনিতে গেল । [ ܘ ܠ ] সেই দিন রাত্রিশেষেই একখানি ডিঙ্গী নৌকা জোর ভাটার টানে ফতেপুরের নদী বহিয়া দক্ষিণ দিকে যাইতেছিল। একে ভাটার টান, তাহার উপর ডিঙ্গীর পালে বাতাস পাইয়াঁছে ; নৌকা একেবারে তীরবেগে ছুটতেছে। একটী যুবক সেই ডিঙ্গীর হাল ধরিয়া বসিয়া আছে। এ ডিঙ্গীর মাৰী স্বয়ং অধর। নৌকার মধ্যে বসিরের মা ক্লান্ত হইয়া ঘুমাইয়া পড়িয়াছে; তাহার কোলের কাছে বসিরের ছেলেটা ঘুমাইতেছে। ছেলের পার্শ্বেই বসিরের স্ত্রী বসিয়া আছে। তাহার কি আজ ঘুম হয়— আজ নিদ্রাদেবী তাহার নিকট হইতে বিদায় গ্ৰহণ করিয়াছেন। ; এমন সুখের দিন কি মানুষের জীবনে কখন হয়! চাষার মেয়ে, হৃদয়ের কথা ভাষায় প্ৰকাশ করিতে জানে না । তাহার মনে তখন যে কি ভাবের উদয় হইয়াছিল, তাহা কথার দ্বারা বলাও যায় না, তাহা শুধু অনুভব করিতে হয়! যে স্বামীকে সে মৃত মনে করিয়া এই কয়মাস কাটাইয়াছে, এ জীবনে যাহাকে জীবিত দেখিবার আশা তাহার ছিল না, দিবানিশি যাহার মূৰ্ত্তি ধ্যান করিয়াই সে বাচিয়া ছিল, সেই বসির-সেই আরাধ্য দেবতা --তাহার জীবনের একমাত্র অবলম্বন ফিরিয়া আসিয়াছে। আজ সে তাহার সেই স্বামীর পার্শ্বে বসিয়া তাহার কথা শুনিতেছে! :