পাতা:কলিকাতা কল্পলতা - রঙ্গলাল বন্দ্যোপাধ্যায়.pdf/২৬

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করার সময় সমস্যা ছিল।
কলিকাতা কল্পলতা
 

সাধ্যানুসারে সেই সকল অসম্পূর্ণ ঘটনারূপ কুসুমযােগে এই প্রবন্ধমালা গাঁথিতে প্রবৃত্ত হইলাম।

 ইং ১৬৯৫ অব্দে ইংরাজদিগের সৌভাগ্যক্রমে এমন এক ঘটনা উপস্থিত হইল, যাহাতে তঁহাদিগের বহুকালের সঞ্চিত বাসনা সম্পূর্ণ হইবার বিলক্ষণ সম্ভাবনা হইয়া উঠিল অথচ সেই অভিলাষসিদ্ধি পক্ষে তাঁহারা পূৰ্ব্বে বিস্তর উপাসনাও প্রচুর উৎকোচ প্রদানে সম্মত ছিলেন। সেই আন্তরিক বদ্ধমূল কামনা এই যে, আপনাদিগের বাণিজ্যালয়ের চতুর্দিক গড়বন্দী করিয়া বাস করেন। এইবার সেই কামনা সফল হইবার দিন সন্নিকট হইল, চেটুয়া বরদার ভূম্যধিকারী শােভা সিং উড়িষ্যা দেশীয় রহিম খাঁ নামক আফগানের সহিত সমবেত হইয়া বর্ধমানের রাজাকে অধিকারচ্যুত করিয়া দেশমধ্যে মহা অরাজকতা উপস্থিত করিল। দুষ্টদিগকে দমন করিবার জন্য যশােহরের ফৌজদার আজ্ঞাপ্রাপ্ত হইয়াছিলেন। কিন্তু উক্ত সেনাপতি হুগলীতে উপস্থিত হইয়া দুষ্ট দলের প্রাবল্য দর্শনমাত্র সদলবলে প্রস্থান করিতে বাধ্য হইলেন। এই সময়ে ভিন্ন ভিন্ন ইউরােপীয় বণিকদল আপনাপন বাণিজ্যালয়রক্ষাৰ্থ সৈন্যরক্ষা ও গড়বন্দী করিবার নিমিত্ত নবাবের স্থানে অনুমতি প্রার্থনা করিলে তিনি তাহাদিগকে প্রয়ােজনমত অস্ত্রশস্ত্র রাখিতে অনুমতি দেন, কিন্তু ইউরােপীয়েরা স্বেচ্ছাপূৰ্ব্বক সেঅনুমতি বিস্তীর্ণ অর্থে গ্রহণপূর্বক আপনাপন স্থান গড়বন্দী করিতে লাগিলেন। অতঃপর ইংরেজরা উক্ত আদেশ পাইবার পরেই আপনাদিগের বাণিজ্যকুটির চতুর্দিকে পরিখা প্রাচীরাদি নির্মাণ করিতে আরম্ভ করিলেন এবং যে পর্যন্ত তাহার কাৰ্য্য সমাধান হইল সে পৰ্য্যন্ত দিবারাত্র আপনাদিগের অধীনস্থ সমুদয় লােককে সেই কার্যে নিযুক্ত রাখিলেন। ঐ দুর্গপূৰ্ব্বে পশ্চিমে

লালদিঘি হইতে ভাগীরথীর তীর পর্যন্ত এবং উত্তর দক্ষিণে ক্লাইভ

২৬