পাতা:কাব্যগ্রন্থ (অষ্টম খণ্ড).pdf/১৬০

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


শারদোৎসব লক্ষেশ্বর আমাদের বীণকারটিও যেমন নির্নের্বাধ ছিল ছেলেটাকেও দেখচি ঠিক তেমনি করেই বানিয়ে গেছে । হতভাগ ছোড়াটা পরের দায় ঘাড়ে নিয়েই মরবে। এক একজনের ঐ রকম মরাই স্বভাব।—আচ্ছা বেশ, মাসের ঠিক তিন তারিখের মধ্যেই নিয়মমত টাকা দিতে হবে । নইলে— উপনন্দ নইলে তাবার কি ! আমাকে ভয় দেখাচ্চ মিছে ! আমার কি আছে যে তুমি আমার কিছু করবে ! আমি আমার প্রভুকে স্মরণ করে ইচ্ছা করেই তোমার কাছে বন্ধন স্বীকার করেচি। আমাকে ভয় দেখিয়েনা বলচি ! লক্ষেশ্বর না না ভয় দেখাব না ! তুমি লক্ষীছেলে, সোনার চাদ ছেলে ! টাকাটা ঠিক মত দিয়ে বাবা ! নইলে আমার ঘরে দেবতা আছে তার ভোগ কমিয়ে দিতে হবে--সেটাতে তোমারই পাপ হবে । (উপনন্দের প্রস্থান ) ঐ যে, আমার ছেলেটা এইখানে ঘুরে ঘুরে বেড়াচ্চে ! আমি কোনখানে টাকা পুতে রাখি ও নিশ্চয়ই সেই খোজে ফেরে। ওদেরই ভয়েই ত আমাকে এক সুরঙ্গ হতে আর এক স্বরঙ্গে টাকা বদল করে বেড়াতে হয়। ধনপতি, এখানে কেন রে! তোর মৎলবটা কি বল দেখি ! >○ケ