পাতা:কাব্যগ্রন্থ (চতুর্থ খণ্ড).pdf/১৪৭

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


ভ্ৰষ্ট লগ্ন শয়ন-শিয়রে প্রদীপ নিবেছে সবে, জাগিয়া উঠেছি ভোরের কোকিল-রবে । অলসচরণে বসি’ বাতায়নে এসে নূতন মালিকা পরেছি শিথিল কেশে । এমন সময়ে অরুণ-ধূসর পথে তরুণ পথিক দেখা দিল রাজরথে । সোনার মুকুটে পড়েছে উষার আলো, মুকুতার মালা গলায় সেজেছে ভালো । সুধাল কাতরে—“সে কোথায়, সে কোথায় !” ব্যগ্রচরণে আমারি দুয়ারে নামি’,— সরমে মরিয়া বলিতে নারিনু হায়, “নবীন পথিক, সে যে আমি, সেই আমি।” গোধূলিবেলায় তখনো জালেনি দীপ, পরিতেছিলাম কপালে সোনার টপ ;— কনক মুকুর হাতে ল’য়ে বাতায়নে— বাধিতেছিলাম কবরী আপন মনে । হেনকালে এল সন্ধ্যা-ধূসর পথে করুণ নয়ন তরুণ পথিক রথে । > ミ>