পাতা:কাব্যগ্রন্থ (চতুর্থ খণ্ড).pdf/১৫৩

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


বঙ্গলক্ষ্মী তোমার মাঠের মাঝে, তব নদীতীরে, তব আম্রবনেঘেরা সহস্ৰ কুটীরে, দোহন-মুখর গোষ্ঠে, ছায়াবটমূলে, গঙ্গার পাষাণ ঘাটে দ্বাদশ দেউলে, হে নিত্যকল্যাণী-লক্ষী, হে বঙ্গ-জননী, আপন অজস্র কাজ করিছ আপনি অহৰ্নিশি হাস্যমুখে । এ বিশ্বসমাজে তোমার পুত্রের হাত নাহি কোনো কাজে নাহি জান সে বারতা । তুমি শুধু, মাগো, নিদ্রিত শিয়রে তা’র নিশিদিন জাগো মলয় বীজন করি । রয়েছ মা ভুলি’ তোমার শ্রীঅঙ্গ হ’তে একে একে খুলি’ সৌভাগ্য ভূষণ তব, হাতের কঙ্কণ, তোমার ললাট-শোভা সীমন্ত-রতন, তোমার গৌরব, তারা বাধা রাখিয়াছে বহুদূর বিদেশের বণিকের কাছে। নিত্যকৰ্ম্মে রত শুধু, অয়ি মাতৃভূমি, প্রত্যুষে পূজার ফুল ফুটাইছ তুমি, >ミ°