পাতা:কাব্যগ্রন্থ (চতুর্থ খণ্ড).pdf/১৯৯

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


প্রকাশ বিশ্বপ্রকৃতি তা’র কাছে তাই ছিলনাক সাবধানে, ঘনঘন তা’র ঘোমটা খসিত ভাবে ইঙ্গিতে গানে । বাসরঘরের বাতায়ন যদি খুলিয়া যাইত কতু দ্বারপাশে তারে বসিতে দেখিয়া রুধিয়া দিত না তবু । যদি সে নিভৃত শয়নের পানে চাহিত নয়ন তুলি’ শিয়রের দীপ নিবাইতে কেহ ছুড়িত না ফুলধূলি । শশী যবে নিত নয়নে নয়নে কুমুদীর ভালবাসা এরে দেখি হেসে ভাবিত এ লোক জানে না চোখের ভাষা । নলিনী যখন খুলিত পরাণ চাহি তপনের পানে ভাবিত এ জন ফুলগন্ধের অর্থ কিছু না জানে। তড়িৎ যখন চকিত নিমেষে পালাত চুমিয়া মেঘে, ভাবিত, এ ক্ষ্যাপা কেমনে বুঝিবে কি আছে অগ্নিবেগে । সহকারশাখে কঁাপিতে কঁাপিতে ভাবিত মালতীলতা আমি জানি আর তরু জানে শুধু কলমৰ্ম্মরকথা । একদা ফাগুনে সন্ধ্যা-সময়ে সূৰ্য্য নিতেছে ছুটি, পূর্ব গগনে পূর্ণিমা চাদ করিতেছে উঠি উঠি ; কোনো পুরনারী তরু-আলবালে জল সেচিবার ভাণে ছল করে’ শাখে আঁচল বাধায়ে ফিরে চায় পিছুপানে, Yom