পাতা:কাব্যগ্রন্থ (দশম খণ্ড).pdf/৪৩

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


বাল্মীকি-প্রতিভা ছন্দে উঠিছে চন্দ্রমা, ছন্দে কনক রবি উদিছে, ছন্দে জগ-মণ্ডল চলিছে ; জুলন্ত কবিতা তারকা সবে ! এ কবিতার মাঝারে তুমি কে গো দেবি, আলোকে আলো আঁধারি ! আজি মলয় আকুল, বনে বনে এ কি গীত গাহিছে, ফুল কহিছে প্রাণের কাহিনী ; নব রাগ রাগিণী উছাসিছে, এ আনন্দে আজ, গীত গাহে, মোর হৃদয় সব অবারি’ ! তুমিই কি দেবী ভারতী, কৃপাগুণে অন্ধ আঁখি ফুটালে, উষা আনিলে প্রাণের আঁধারে ; প্রকৃতির রাগিণী শিখাইলে । তুমি ধন্য গো, র’ব চিরকাল চরণ ধরি’ তোমারি ! সরস্বতী ।—দীনহীন বালিকার সাজে, এসেছিনু ঘোর বনমাঝে, গলাতে পাষাণ তোর মন,— কেন বৎস, শোন, তাহা শোন ! আমি বীণাপাণি, তোরে এসেচি শিখাতে গান, তোর গানে গলে’ যাবে সহস্ৰ পাষাণ-প্ৰাণ । যে রাগিণী শুনে তোর গলেচে কঠোর মন, সে রাগিণী তোর কণ্ঠে বাজিবে রে অনুক্ষণ । ○>