পাতা:কাব্যগ্রন্থ (নবম খণ্ড).pdf/৫৩

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


রাজা ঠাকুর্দা ! যদি তোরা তোদের সেই কবির কাছে বিধান নিতিস তাহ’লে শুনতে পেতিস এই ফাল্গুন মাসের দিনে ঠাকুর্দা প্রভৃতি পরোনো জিনিষ মাত্রই একেবারে বর্জনায় । আমার নামে গান বেঁধে আজ রাগ-রাগিণীর অপব্যয় করিস নে, তোরা সরস্বতীর বীণার তারে মরচে ধরিয়ে দিবি যে ! দ্বিতীয় । ঠাকুর্দা, তুমি ত রাস্তাতেই সভা জমালে, উৎসবে যাবে কখন ? চল আমাদের দক্ষিণ বনে । ঠাকুর্দা । ভাই, আমার ঐ দশা, আমি রাস্তা থেকেই চাখতে চাখতে চলি, তা’র পরে ভোজটা ত আছেই । তাiদালন্তে চ মধ্যে চ | 4 ---- দ্বিতায় । দেখ দাদা, আজকের দিনে মনে একটা কথা বড় লগচে । ঠাকুর্দ । কি বল দেখি । দ্বিতীয়। এবার দেশবিদেশের লোক এসেছে, সবাই বলচে সবই দেখচি ভালো কিন্তু রাজা দেখিনে কেন ? কাউকে জবাব দিতে পারিনে | আমাদের দেশে ঐটে একটা বড় ফাকা রয়ে গেছে । ঠাকুর্দা । ফাকা! আমাদের দেশে রাজা এক জায়গায় দেখা দেয় না বলেই ত সমস্ত রাজাটা একেবারে রাজায় ঠাসা হ’য়ে রয়েছে—তা’কে বল ফাকা । সে যে আমাদের সবাইকেই রাজা করে দিয়েছে ! এই Ꮈó