পাতা:কাব্যগ্রন্থ (নবম খণ্ড).pdf/৬০০

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


বাতাস ছুটিছে বনময় রে, ফুলের না জানে পরিচয় রে । তাই বুঝি বারে বারে কুঞ্জের দ্বারে দ্বারে শুধায়ে ফিরিছে জনে জনে । ফাগুন লেগেচে বনে বনে ॥ ফাগুনের গুণ আছেরে, ভাই, গুণ আছে ! বুঝলি কি করে’ ? নইলে আমাদের এই দাদাকে বাইরে টেনে আনে কিসের জোরে ? তাই ত—দাদা আমাদের চৌপদৗছন্দের বোঝাই নেীকে —ফাগুনের গুণে বাধা পড়ে’ কাগজ কলমের উল্টো মুখে উজিয়ে চলেচে । চন্দ্রহাস । ওরে ফাগুনের গুণ নয়রে ! আমি চন্দ্রহাস, দাদার তুলট কাগজের হলদে পাতাগুলো পিয়াল বনের সবুজ পাতার মধ্যে লুকিয়ে রেখেচি ; দাদা খুঁজতে বের হয়েচে । তুলট কাগজগুলো গেচে আপদ গেচে কিন্তু দাদার শাদ চাদরটা ত কেড়ে নিতে হচ্চে। চন্দ্রহাস । তাই ত, আজ পৃথিবীর ধূলোমাটি পর্য্যন্ত শিউরে উঠেচে আর এ পর্য্যন্ত দাদার গায়ে বসন্তর আমেজ লাগল না ! .

  • लोंwीं ! আহা কি মুন্ধিল । বয়েস হয়েচে যে !

¢ዓ\ኃ