পাতা:কাব্যগ্রন্থ (পঞ্চম খণ্ড).pdf/১০৭

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


মালিনী আজি মোর মনে হয় অমৃতের পাত্ৰ যেন আমার হৃদয়— যেন সে মিটাতে পারে এ বিশ্বের ক্ষুধা যত দুঃখ যেথা আছে সকলের পরে অনন্ত প্রবাহে ।—দেখ দেখ নীলাম্বরে মেঘ কেটে গিয়ে চাদ পেয়েছে প্রকাশ । কি বৃহৎ লোকালয়—কি শান্ত আকাশ— একজ্যোৎস্না বিস্তারিয়া সমস্ত জগৎ কে নিল কুড়ায়ে বক্ষে—ওই রাজপথ, ওই গৃহশ্রেণী, ওই উদার মন্দির— স্তব্ধচ্ছায়া তরুরাজি—দূরে নদীতীর, বাজিছে পূজার ঘণ্টা—আশ্চৰ্য্য পুলকে পূরিছে আমার অঙ্গ—জল আসে চোখে, কোথা হ’তে এমু আমি আজি জ্যোৎস্নালোকে তোমাদের এ বিস্তীর্ণ সবর্বজনলোকে । চারুদত্ত তুমি বিশ্বদেবী । সোমাচাৰ্য্য ধিক পাপ রসনায় । শত ভাগে ফাটিয়া গেল না বেদনায়,— চাহিল তোমার নির্ববাসন ! సా\లి