পাতা:কাব্যগ্রন্থ (পঞ্চম খণ্ড).pdf/৩৪২

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


কথা ও কাহিনী আসিল জোয়ার —মাঝি দেবতারে স্মরি ত্বরিত উত্তরমুখে খুলে দিল তরী। রাখাল শুধায় আসি ব্রাহ্মণের কাছে “দেশে পহুছিতে আর কতদিন আছে ?” সূৰ্য্য অস্ত না যাইতে, ক্রোশ দুই ছেড়ে উত্তর বায়ুর বেগ ক্রমে উঠে বেড়ে । রূপনারাণের মুখে পড়ি বালুচর সঙ্কীণ নদীর পথে বাধিল সমর জোয়ারের স্রোতে আর উত্তরসমীরে উত্তাল উদাম । তরণী ভিড়াও তীরে উচ্চকণ্ঠে বারম্বার কহে যাত্রীদল । কোথা তীর ? চারিদিকে ক্ষিপ্তোন্মত্তজল আপনার রুদ্রনৃত্যে দেয় করতালি লক্ষ লক্ষ হাতে । দিগন্তরে যায় দেখা অতি দূর তীর প্রান্তে নীল বনরেখা ;— অন্য দিকে লুব্ধ ক্ষুব্ধ হিংস্র বারিরাশি প্রশান্ত সূৰ্য্যাস্ত পানে উঠিছে উচ্ছাসি উদ্ধত বিদ্রোহভরে । নাহি মানে হাল, ঘুরে টলমল তরী অশান্ত মাতাল Տ)Հե