পাতা:কাব্যগ্রন্থ (পঞ্চম খণ্ড).pdf/৩৮৮

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


কথা ও কাহিনী রাজেন্দ্র প্রসেনজিত উচ্চারি মঙ্গলগীত চলেছেন বুদ্ধ দরশনে— হেরি অকালের ফুল— শুধালেন, কত মূল ? কিনি দিব প্রভুর চরণে । মালী কহে, হে রাজন স্বর্ণ মাষা দিয়ে পণ কিনিছেন এই মহাশয় । দশ মাষা দিব আমি— কহিলা ধরণী:স্বামী, বিশ মাষা দিব—পাস্থ কয় । দোহে কহে, দেহ দেহ, হার নাহি মানে কেহ, মূল্য বেড়ে ওঠে ক্রমাগত। মালী ভাবে যার তরে এ দোহে বিবাদ করে র্তারে দিলে আরো পাব কত ? কহিল সে করজোড়ে দয়া করে ক্ষম মোরে— এ ফুল বেচিতে নাহি মন । এত বলি ছুটিল সে যেথা রয়েছেন বসে* বুদ্ধদেব উজলি কানন। বসেছেন পদ্মাসনে প্রসন্ন প্রশান্তমনে, নিরঞ্জন আনন্দ মুরতি । দৃষ্টি হ’তে শান্তি করে স্ফুরিছে অধরপরে করুণার স্বধাহাস্যজ্যোতি । সুদাস রহিল চাহি,— নয়নে নিমেষ নাহি, মুখে তা’র বাক্য নাহি সরে। \©ጫ8