পাতা:কাব্যগ্রন্থ (সপ্তম খণ্ড).pdf/২৮৪

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


সার্থক নৈরাশ্র্য তখন ছিল যে গভীর রাত্রিবেলা নিদ্রা ছিল না চোখের কোণে ; আষাঢ় আঁধারে আকাশে মেঘের মেলা, কোথাও বাতাস ছিল না বনে । বিরাম ছিল না তপ্ত শয়নতলে, কাঙাল ছিল বসে’ মোর প্রাণে : দু’হাত বাড়ায়ে কি জানি কি কথা বলে, কাঙাল চায় যে কারে কে জানে দিল আঁধারের সকল রন্ধ ভরি’ তাহার ক্ষুব্ধ ক্ষুধিত ভাষা ; মনে হ’ল যেন বর্ষার বিভাবরা আজি হারা লরে সব আশা । অনাথ জগতে যেন এক সুখ আছে তাও জগৎ খুজে না মেলে ; আঁধারে কখন সে এসে যায়গো পাছে বুকে রেখেছে তা গুন জ্বেলে । দাও দাও বলে’ হাকিমু সুদূরে চেয়ে অামি ফুকারি ডাকিনু কারে । এমন সময়ে অরুণ-তরণী বেয়ে প্রভাত নামিল গগনপারে । ૨૭ ૦