পাতা:কাব্যগ্রন্থ (সপ্তম খণ্ড).pdf/৩৯৮

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


উৎসর্গ “হের প্রভু স্বর্ণশীর্ষ নৃপতিনিৰ্ম্মিত নিকেতন অভ্ৰভেদী দেবালয়, তা’রে কেন করিয়া বর্জন দেবতার স্তবগান গাহিতেছ পথপ্রান্তে বসে’ ?” “সে মন্দিরে দেব নাই”—কহে সাধু । রাজা কহে রোষে “দেব নাই ? হে সন্ন্যাসী, নাস্তিকের মত কথা কহ ! রত্ন-সিংহাসনপরে দীপিতেছে রতন বিগ্রহ— শূন্য তাহা ?” “শূন্য নয়, রাজদন্তে পূর্ণ”—সাধু কহে, “আপনারে স্থাপিয়াছ, জগতের দেবতারে নহে ।” ভ্র কুঞ্চিয়া কহে রাজা,—“বিংশলক্ষ স্বর্ণ-মুদ্রা দিয়া রচিয়াছি অনিন্দিত যে মন্দির অম্বর ভেদিয়া, পূজামন্ত্রে নিবেদিয়া দেবতারে করিয়াছি দান, তুমি কহ সে মন্দিরে দেবতার নাই কোন স্থান ?” শান্তমুখে কহে সাধু—“যে বৎসর বহিদাহে গৃহহীন প্রজাদলে এল চলে প্রবাহে প্রবাহে দাড়াইল দ্বারে তব, কেঁদে গেল ব্যর্থ প্রার্থনায় অরণ্যে, গুহার গর্ভে, পথপ্রান্তে, তরুর ছায়ায়, অশ্বথবিদীর্ণ জীর্ণ মন্দির প্রাঙ্গণে, সে বৎসর বিংশলক্ষ মুদ্রা দিয়া রচি তব স্বর্ণদৃপ্ত ঘর দেবতারে সমৰ্পিলে । সেদিন কহিলা ভগবান— আমার অনাদি ঘরে অগণ্য আলোক দীপ্যমান w©ዓ8