পাতা:কাব্যগ্রন্থ (সপ্তম খণ্ড).pdf/৪২৯

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


যখন গেলে চলে’ তোমার গ্রীবামূলে দীর্ঘ বেণী তব এলিয়ে ছিল খুলে’, মাল্যখানি গাথা সাজের কোন ফুলে লুটিয়ে পড়েছিল পায়ে । একটুখানি তুমি দাড়িয়ে যদি যেতে ! নতুন ফুলে দেখ কানন ওঠে মেতে, দিতেম ত্বর করে” নবান মালা গেথে কনকচাঁপা-বনছায়ে । মাঠের পথে যেতে তোমার মালাখানি প’ল কি বেণী হ’তে খসে ? আজকে ভাবি তাই বসে’ ! নূপুর ছিল ঘরে গিয়েছ পায়ে পরে’, নিয়েছ হেথা হ’তে তাই, অঙ্গে আর কিছু নাই । আকুল কলতানে শতেক রসনায় চরণ ঘেরি’ তব কঁাদিছে করুণায়, তাহারা হেথাকার বিরহবেদনায় মুখর করে তব পথ । জানি না কি এত যে তোমার ছিল ত্বর, কিছুতে হ’ল না যে মাথার ভূষা পর, 8 o (t উৎসর্গ