পাতা:কাহিনী-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.djvu/১৫৩

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


34. o कांहिनैौ কল্যাণী o সব নিয়ে গেছে, কিছু নেই বাকি । ক্ষীরো অদৃষ্টে ছিল এত দুখ তোর ! গয়না যা ছিল হীরে-মুক্তোর, সেই বড়ো বড়ো নীলার কষ্ঠি, কানবালা-জোড়া বেড়ে গড়নটি, সেই-যে চুনীর পাচনলি হার, হীরে-দেওয়া সিথি লক্ষ টাকার— সেগুলো নিয়েছে বুঝি লুটে-পুটে ! কল্যাণী সব নিয়ে গেছে সৈন্যেরা জুটে । ক্ষীরো আহা, তাই বলে, ধনজনমান পদ্মপত্রে জলের সমান ! দামি তৈজস ছিল যা পুরোনে। চিহ্নও তার নেই বুঝি কোনো ? সে কালের সব জিনিস-পত্ৰ— আসাসোটাগুলো, চামর-ছত্ৰ, চাদোয়া-কানাত, গেছে বুঝি সব ? শাস্ত্রে যে বলে ধনবৈভব তড়িৎ-সমান, মিথ্যে সে নয় । এখন তা হলে কোথা থাকা হয় ? বাড়িটা তো আছে ?