পাতা:খুন না চুরি? - প্রিয়নাথ মুখোপাধ্যায়.pdf/৩৯

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা হয়েছে, কিন্তু বৈধকরণ করা হয়নি।

খুন না চুরি?

৩৯


 লো। আছে, কিন্ত সেখানে নিয়ে গেলে সকলকে অংশ দিতে হইবে। আমরা চারিজনে ঘরটা ভাড়া লইয়াছি।

 আ। ভাল, আমি তাহাদিগকেও স্বতন্ত্র দিব, তুমি কামিনীকে সেইখানে লইয়া যাইও। আপাততঃ সেই ঘরটা আমাদিগকে দেখাইয়া দাও।

 তাহাদের আড্ডা নিকটেই ছিল। লাল সিংকে লইয়া আমি সেই ঘরের ভিতর বসিলাম। যাহার সহিত আমার দেখা হইয়াছিল, তাঁহাকেই কর্ত্তা বলিয়া বোধ হইল। সে সকলকে চুপিচুপি আমাদের সেখানে যাইবার কারণ বুঝাইয়া দিল—পুরষ্কারের কথাও ভুলিল না। লাভের আশা পাইয়া সকলেই আনন্দিত হইল এবং আমাদিগকে বথেষ্ট সম্মান প্রদর্শন করিতে লাগিল।

 অর্দ্ধ ঘণ্টা মধ্যেই কামিনীকে লইয়া পূর্ব্বোক্ত ব্যক্তি ফিরিয়া আসিল। তখন অপরাপর লোক সকল এক একটী অছিলা করিয়া সেখান হইতে বিদায় লইল। অবশেষে যে কামিনীকে আনিয়াছিল, সেও তামাক আনিবার নাম করিয়া সরিয়া পড়িল।

 আমি দেখিলাম, কামিনীর বয়স প্রায় চল্লিস বৎসর হইলেও তাহাকে বৃদ্ধা বলা যায়। যে কারণেই হউক, সে সোজা হইয়া দাঁড়াইতে পারে না। কোমর বাঁকিয়া শরীরের উপরার্দ্ধ নত করিয়াছে। তাহার মাথার চুল অধিকাংশ কটা। শরীরের মাংস শিথিল হইয়া পড়িয়াছে, চক্ষু কোটরে প্রবেশ করিয়াছে।

 অনেক কষ্টে আমার দিকে মুখ তুলিয়া কামিনী জিজ্ঞাসা করিল, “কি বাবা, তুমিই ডেকে পাঠিয়েছিলে?”

 আমি বলিলাম, “ছেলে মেয়ে ধরা ব্যবসা কবে থেকে আরম্ভ করেছ?”