প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:গল্পগুচ্ছ (চতুর্থ খণ্ড).pdf/১০৯

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


ᏑᏓᎴᏅ গল্পগুচ্ছ বিমলাদিদি, বোডিং স্কুলের অহংকারের সামগ্রী ছিল। পিতার মৃত্যুর পরে আজ ক্লাস পড়াবার ভার নিয়েছে; আর এ দিক ও দিক থেকে কিছ টিউশনি করে কাজ চালায়। যে পাকে একদিন সে ঘণা করেছিল সেই পাকে অঘ দেবার জন্য আজ তার বিশেষ করে নিমন্ত্রণ হয়েছে। মণিালিনী মাসি— সেই সেদিনকার দিদি। আর সেই তার ভাই জগদীশপ্রসাদ, হাইকোটের জজ। এটা গল্পের মতো শোনাচ্ছে, কিন্তু কখনও কখনও গল্পও সত্যি হয়। আর যে লোকটা এই ইতিহাসটা লিখছে সে হচ্ছে অবিনাশ, সেদিন সে লম্বা লম্ববা পা ফেলে বড়ো বড়ো পরীক্ষা ডিঙিয়ে চলত—সেও উপস্থিত ছিল সেই প্রথমবারকার পরস্কারের উৎসবে। সেদিন নানারকম খেলা হয়েছিল—হাইজাপ, লম্বা দৌড়, রশি-টানাটানি—তার মধ্যে এই অবিনাশ আবত্তি করেছিল রবিঠাকুরের পঞ্চনদীর তীরে'। কবিতার ছন্দের জোর যত, তার গলার ছিল জোর চার গণ বেশি। সেই-ই সবচেয়ে বড়ো পরস্কার পেয়েছিল। আজ সে জজের অনগ্রহে সেরেস্তাদারের সেরেস্তার হেড-কেরানির পদ পেয়েছে। 6=t CI SS8S শ্রাবণ ১৩৪১