প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:গল্পগুচ্ছ (চতুর্থ খণ্ড).pdf/১২

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


●もf○ রবিবার আমার গল্পের প্রধান মানষেটি প্রাচীন ব্রাহ্মণপণ্ডিত-বংশের ছেলে। বিষয়ব্যাপারে বাপ ওকালতি ব্যবসায়ে অঠি পর্যন্ত পাকা, ধমকমে শান্ত আচারের তাঁর জায়ক রসে জারিত। এখন আদালতে আর প্রাকটিস করতে হয় না। এক দিকে পজা-অৰ্চনা আর-এক দিকে ঘরে বসে আইনের পরামর্শ দেওয়া, এই দটোকে পাশাপাশি রেখে তিনি ইহকাল পরকালের জোড় মিলিয়ে অতি সাবধানে চলেছেন। কোনো দিকেই একটা পা ফসকায় না। . ༣ ཝཱ་ এই রকম নিরেট আচার-বাঁধা সনাতনী ঘরের ফাটল ফুড়ে যদি দৈবাৎ কাঁটাওয়ালা নাস্তিক ওঠে গজিয়ে, তা হলে তার ভিত-দেয়াল-ভাঙা মন সাংঘাতিক ঠেলা মারতে থাকে ইটকাঠের প্রাচীন গাঁথনির উপরে। এই আচারনিষ্ঠ বৈদিক ব্রাহ্মণের বংশে দদাত কালাপাহাড়ের অভু্যদয় হল আমাদের নায়কটিকে নিয়ে। তার আসল নাম অভয়াচরণ। এই নামের মধ্যে কুলধমের যে ছাপ আছে সেটা দিল সে ঘষে উঠিয়ে। বদল করে করলে অভীককুমার। তা ছাড়া ও জানে যে প্রচলিত নমনার মানুষ ও নয়। ওর নামটা ভিড়ের নামের সঙ্গে হাটে-বাজারে ঘোষাঘেৰি করে ঘমান্ত হবে সেটা ওর রচিতে বাধে। *r অভীকের চেহারাটা আশ্চর্য রকমের বিলিতি ছাঁদের। অটি লম্বা দেহ গৌরবণ", চোখ কটা, নাক তীক্ষা, চিবকেটা বংকেছে যেন কোনো প্রতিপক্ষের বিরদ্ধে প্রতিবাদের ভঙ্গিতে। আর ওর মন্টিযোগ ছিল অমোঘ, সহপাঠীরা যারা কদাচিৎ এর পাণিপীড়ন সহ্য করেছে তারা একে শতহস্ত দরে বজনীয় বলে গণ্য করত। ছেলের নাস্তিকতা নিয়ে বাপ অম্বিকাচরণ বিশেষ উদবিগ্ন ছিলেন না। মন্ত তাঁর নজির ছিল প্রসন্ন ন্যায়রত্ন, তাঁর আপন জেঠামশায়। বন্ধ ন্যায়রত্ন তকশালের গোলন্দাজ, চতুষ্টপাঠীর মাঝখানে বসে অনসবার-বিসগ"-ওয়ালা গোলা দাগেন ঈশ্বরের অস্তিত্ববাদের উপরে। হিন্দুসমাজ হেসে বলে গোলা খা ডালা’, দাগ পড়ে না সমাজের পাকা প্রাচীরের উপরে। আচারধমের খাঁচাটাকে ঘরের দাওয়ায় দলিয়ে রেখে ধৰ্মবিশ্বাসের পাখিটাকে শান্য আকাশে উড়িয়ে দিলে সাম্প্রদায়িক অশান্তি ঘটে না । কিন্তু অভীক কথায় কথায় লোকাচারকে চালান দিত ভাঙা কুলোয় চড়িয়ে ছাইয়ের গাদার উদ্দেশে। ঘরের চার দিকে মোরগদাপতিদের অপ্রতিহত সচ্চরণ সবজাই মখেরধৰনিতে প্রমাণ করত তাদের উপর বাড়ির বড়োবাবরে আভ্যন্তরিক আকষণ। এ-সমস্ত শেলচ্ছাচারের কথা ক্ষণে ক্ষণে বাপের কানে পেশাচেছে, সে তিনি কানে তুলতেন না। এমন-কি, বন্ধভাবে যে ব্যক্তি তাঁকে খবর দিতে আসত, সঙ্গাজনে দেউড়ির অভিমুখে তার নিগমনপথ দত নির্দেশ করা হত। অপরাধ অত্যন্ত প্রত্যক্ষ না হলে সমাজ নিজের গরজে তাকে পাশ কাটিয়ে যায়। কিন্তু অবশেৰে অভীক একবার এত বাড়াবাড়ি করে বসল যে তার অপরাধ অস্বীকার করা অসম্ভব হল । ভদ্রকালী ওদের গহদেবতা, তাঁর খ্যাতি ছিল প্রাগ্রত বলে। অভাঁকের সতীৰ বেচারা ङञ्जद उाग्नि डग्न कब्रउ ७ई एमयष्ठाब्र अष्टनिन्वङा । छाई अर्नाश्यद शरा उाग्न छौखटक 6. S %. , r