প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:গল্পগুচ্ছ (চতুর্থ খণ্ড).pdf/২৪

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


ब्रविदाब्र €\ఉt সটির সমস্ত ছেলেখেলা ধরাবার জন্যে আকাশ শন্য হয়ে আছে।” । বিভা বকেল বিভারই ভগবানের বিরুদ্ধে ওর এই বিদ্রুপ । কোনো তক করে সে মাথা নিচু করে চুপ করে বসে রইল। অভীক দরজার কাছ থেকে ফিরে এসে বললে, “দেখো বী, তুমি প্রচণ্ড ন্যাশনালিস্ট। ভারতবর্ষে ঐক্যস্থাপনের স্বপন দেখ। কিন্তু যে দেশে দিনরারি ধম’ নিয়ে খনোখনি সে দেশে সব ধমকে মেলাবার পণ্যব্রত আমার মতো নাস্তিকেরই। আমিই ভারতবষের ত্রাশকতা।” অভাঁকের নাস্তিকতা কেন যে এত হিংস্র হয়ে উঠেছে বিভা তা জানে। তাই তার উপরে রাগ করতে পারে না। কিছতে ভেবে পায় না কী হবে এর পরিণাম । বিভার আর যা-কিছল আছে সবই সে দিতে পারে, কেবল ঠেকেছে ওর পিতার ইচ্ছায় । সে ইচ্ছা তো মত নয়, বিশ্বাস নয়, তকের বিষয় নয়। সে ওর সবভাবের অঙ্গ । তার প্রতিবাদ চলে না। বার বার মনে করেছে এই বাধা সে লঙ্ঘন করবে। কিন্তু শেষ মহেনতে কিছুতে তার পা সরতে চায় না। বেহারা এসে খবর দিলে অমরবাব এসেছেন। আভীক অবিলম্বেব দাড়দোড় করে সিড়ি বেয়ে চলে গেল। বিভার বকের মধ্যে মোচড়াতে লাগল। প্রথমটাতে ভাবলে অধ্যাপককে বলে পাঠাই আজ পাঠ নেওয়া হবে না। পরক্ষণেই মনটাকে শন্ত করে বললে, “আচ্ছা, এইখানে নিয়ে আয়। বসতে বল। একটা বাদেই আসছি।” শোবার ঘরে উপড়ে হয়ে বিছানায় গিয়ে পড়ল। বালিশ অাঁকড়ে ধরে কান্না। অনেক ক্ষণ পরে নিজেকে সামলিয়ে নিয়ে মুখে চোখে জল দিয়ে হাসিমুখে ঘরে এসে বললে, “আজ মনে করেছিলাম ফাঁকি দেব।" “শরীর ভালো নেই বাৰি ?” “না, বেশ আছে। আসল কথা, কতকাল ধরে রবিবারের ছয়টি রক্তের সঙ্গে মিশে গেছে, থেকে থেকে তার প্রকোপ প্রবল হয়ে ওঠে।” অধ্যাপক বললেন, "আমার রক্তে এ পর্যন্ত ছয়টির মাইক্লোব ঢোকবার সময় পায় নি। কিন্তু আমিও আজ ছুটি নেব। কারণটা বুঝিয়ে বলি। এ বছর কোপেনহেগেনে সাবজাতিক ম্যাথামেটিকস কনফারেন্স হবে। আমার নাম কী করে ওদের নজরে পড়ল জানি নে। ভারতবষের মধ্যে আমিই নিমন্ত্রণ পেয়েছি। এতবড়ো সযোগ তো ব্যথ হতে দিতে পারি নে।” க் বিভা উৎসাহের সঙ্গে বললে, “নিশ্চয় আপনাকে যেতে হবে ।” অধ্যাপক একটুখানি হেসে বললেন, “আমার উপরওয়ালা যাঁরা আমাকে ডেপটেশনে পাঠাতে পারতেন তাঁরা রাজি নন, পাছে আমার মাথা খারাপ হয়ে যায়। অতএব তাঁদের সেই উৎকণ্ঠা আমার ভালোর জন্যেই। তেমন কোনো বন্ধ যদি পাই ষে লোকটা খুব বেশি সেয়ানা নয়, তারই সন্ধানে আজ বেরব। ধারের বদলে যা বন্ধক দেবার আশা দিতে পারি সেটাকে না পারব দাঁড়িপাল্লায় চড়াতে, না পারব কটিপাথরে ঘষে দেখাতে। আমরা বিজ্ঞানীরা কিছর বিশ্বাস করবার প্বে প্রত্যক্ষ প্রমাণ খুজি, বিষয়বধিওয়ালারাও খোঁজে—ঠকাবার জো নেই কাউকে।” جين" বিভা উত্তেজিত হয়ে বললে, “যেখান থেকে হোক বন্ধন একজনকে বের করবই,