প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:গল্পগুচ্ছ (চতুর্থ খণ্ড).pdf/২৪২

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


গ্রন্থপরিচয় SOSలి निकल्ले बाटणा उिनि ७कप्लेि नष्ठा घणेनाव्र विवब्रश गर्दानग्नाइट्लन, बाशाग्न चरनक यरल জীবিত ও মত -কাহিনীর প্রথমাংশের অনরপে। ঘটনাটি তারকনাথ অধিকারী মহাশয় রবীন্দ্রনাথকে বলিয়াছিলেন। তাঁর কাছে শোনা সত্য কাহিনীটাই যে রবীন্দ্রনাথের জীবিত ও মত কাহিনীর আসল ( আংশিক ] উপাদান তা অনুমান করার যথেষ্ট কারণ আছে।’ কাবলিওয়ালা কাবলিওয়ালা বাস্তব ঘটনা নয়। মিনি আমার বড়ো মেয়ের আদশে রচিত। ৭ আশিবন ১৩৩৮ —রবীন্দ্রনাথ। চিঠিপত্র ১ রবীন্দ্রনাথ বলিলেন, যা-তা গল্পই তো গল্প। আমার ভারি soothing লাগে। ছোটো ছেলের সঙ্গে ছোটো মেয়ের ঐখানে প্রভেদ। অভি ( ভ্রাতুলপত্রী ] আমার পিছনে দড়িয়ে সারাদিন ঐরকম বকে যেত। আমি বলিলাম, কাবলিওয়ালার মিনির মতো ?’ কবি বলিলেন, "বেলাটা { জ্যেষ্ঠা কন্যা ] ঠিক আমনি ছিল, মিনির কথা প্রায় তার কথাই সব তুলে দিয়েছি।” — শ্ৰীসীতা দেবী। পণ্যসমতি छ्र्याप्ने বিকেলবেলায় আমি এখানকার গ্রামের ঘাটের উপর বোট লাগাই । অনেকগলো ছেলে মিলে খেলা করে, বসে বসে দেখি। কিন্তু আমার সঙ্গে সঙ্গে নিশিদিন যে পদাতিক সৈন্য লেগে থাকে তাদের জবালায় আর আমার মনে সুখ নেই। ছেলেদের খেলা তারা বেআদবি মনে করে ... কালও তারা ছেলেদের তাড়া করতে উদ্যত হয়েছিল, আমি আমার রাজমর্যাদা জলাঞ্জলি দিয়ে তাদের নিবারণ করলাম । ঘটনাটা হচ্ছে এই— ডাঙার উপর একটা মস্ত নৌকার মাতুল পড়ে ছিল— গোটাকতক বিবস্ত্র ক্ষদে ছেলে মিলে অনেক বিবেচনার পর ঠাওরালে যে, যদি যথোচিত কলরবসহকারে সেইটেকে ঠেলে ঠেলে গড়ানো যেতে পারে তা হলে খুব একটা নতুন এবং আমোদজনক খেলার সন্টি হয়। যেমন মনে আসা অমনি কাযারভ, ‘সাবাস জোয়ান— হেইয়ো। মারো ঠেলা হোইয়ো।' মাসতুল যেমনি এক পাক ঘরেছে অমনি সকলের আনন্দে উচ্চহাস্য। ... একটি ছোটো মেয়ে বিনাবাক্যব্যয়ে গভীর প্রশান্ত ভাবে সেই মাসতুলটার উপর গিয়ে চেপে বসল। ছেলেদের এমন সাধের খেলা মাটি। দই-একজন ভাবলে এমন পথলে হার মানাই ভালো, তফাতে গিয়ে তারা লানমন্খে সেই মেয়েটির আটল গাভীয* নিরীক্ষণ করতে লাগল। ওদের মধ্যে একজন এসে পরীক্ষাচ্ছলে মেয়েটাকে একটা একটা ঠেলতে চেটা করলে। কিন্তু সে নীরবে নিশ্চিন্তমনে বিশ্রাম করতে লাগল। সবজ্যেষ্ঠ ছেলেটি এসে তাকে বিশ্রামের জন্যে অন্য স্থান নিদেশ করে দিলে, সে তাতে সতেজে মাথা নেড়ে কোলের উপর দটি হাত জড়ো করে নড়ে-চড়ে আবার বেশ গুছিয়ে বসল—তখন সেই ছেলেটা শারীরিক