প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:গল্পগুচ্ছ (চতুর্থ খণ্ড).pdf/৫৫

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


Ե ՀՑ গল্পগুচ্ছ “চেষ্টা করব, কিন্তু কাজটা খুব সহজ নয়। আর কেউ হলে তোমার দান লাফিয়ে নিত।” “কোথায় বাধছে বলনে।” “শিশৱকাল থেকে একটি মেয়ে-গ্রহ ওর কুটি দখল করে বসেছে। রাস্পতা আগলে রয়েছে আটল অবধি।” “বলেন কী! প্রযেমানষে—” “দেখো মিসেস মল্লিক, রাগ করবে কাকে নিয়ে। জান মেট্রিয়াকাল সমাজ কাকে বলে ? যে সমাজে মেয়েরাই হচ্ছে পরেষের সেরা। এক সময়ে সেই দাবিড়ি সমাজের ঢেউ বাংলাদেশে খেলত।” সোহিনী বললে, “সে সদিন তো গেছে। তলায় তলায় ঢেউ খেলে হয়তো, ঘলিয়ে দেয় বৃদ্ধিসদ্ধি, কিন্তু হাল যে একলা পরষের হাতে। কানে মন্ত্র দেন তাঁরাই, আর জোরে দেন কানমলা। কান ছিড়ে যাবার জো হয়।” “আহাহা, কথা কইতে জান তুমি। তোমার মতো মেয়েদের যুগ যদি আসে তা হলে মেট্রিয়াকাল সমাজে ধোবার বাড়ির ফদ রাখি মেয়েদের শাড়ির, আর আমাদের কলেজের প্রিন্সিপলকে পাঠিয়ে দিই ঢেকি কুটতে। মনোবিজ্ঞান বলে, বাংলাদেশে মেট্রিয়াকি বাইরে নেই, আছে নাড়িতে। মা মা শব্দে হাবাধৰনি আর কোনো দেশের পরষমহলে শনেছ কি। তোমাকে খবর দিচ্ছি, রেবতীর বৃদ্ধির ডগার উপরে চড়ে বসে আছে একটি রীতিমত মেয়ে।” "কাউকে ভালোবাসে নাকি ৷” “আহা, সেটা হলে তো বঝেতুম ওর শিরায় প্রাণ করছে ধকেধকে। বাবতীর হাতে বন্ধি খোওয়াবার বায়না নিয়েই তো এসেছে, এই তো সেই বয়েস। তা না হয়ে এই কাঁচা বয়সে ও যে এক মালাজপকারিণীর হাতে মালার গল্পটি বনে গেছে। ওকে বাঁচাবে কিসে—না যৌবন, না বৃদ্ধি, না বিজ্ঞান।” "আচ্ছা, একদিন ওঁকে এখানে চা খেতে ডাকতে পারি কি। আমাদের মতো অশুচির ঘরে খাবেন তো?” “অশুচি না খায় তো ওকে আছড়ে আছড়ে এমনি শুচি করে নেব যে বামনাইয়ের দাগ থাকবে না ওর মজায়। একটা কথা জিজ্ঞাসা করি, তোমার নাকি একটি সন্দেরী মেয়ে আছে।” “আছে। পোড়াকপালী সন্দেরীও বটে। তা কী করব বলন।” “ना ना, आभाटक छूल काटद्रा ना । आभाग्न कथा याम यज-नदन्मग्नौ ८भरग्न आबि পছন্দই করি। ওটা আমার একটা রোগ বললেই হয়। কিন্তু ওর আত্মীয়েরা বেরসিক, ভয় পেয়ে যাবে।” “ভয় নেই, আমি নিজের জাতেই মেয়ের বিয়ে দেব ঠিক করেছি।” এটা একেবারে বানানো কথা। . “তুমি নিজে তো বেজাতে বিয়ে করেছ।” “नाकाल श्रब्राह कध नग्न । विबळकाव्र मथल निरग्न भाधणा कब्रटङ ए८ब्रटइ विन्डब्र । zब कट्ब्र छिटछाँइ टनणैो बणवाब्र कथा नग्न ।” “শনেছি কিছু কিছল। বিপক্ষ পক্ষের আর্টিকেলড ক্লাককে নিয়ে তোমার