পাতা:গৌতমীয়-তন্ত্রম্‌.djvu/২

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


নিবেদন এই অসংখা অন্ত্ৰ-বিরাজিত-শিবশক্তিসাধনায় অষ্টসিদ্ধিলাভের নান৷ প্রক্রিয়ানির্দেশিত দেশে—বৈষ্ণবীয় সাধনার তন্ত্র নাই বলিলেও অদ্ভুক্তি হয় না। বৈষ্ণবগণের সাধনকুঞ্জে বৈষ্ণবীয় সাধনতন্ত্র প্রচ্ছন্ন থাকিলেও এ পর্য্যন্ত তাছা প্রকাশিত হইয়া ধৰ্ম্মপিপাসু সত্যামুসন্ধিৎসু পাঠকগণের তত্ত্বপিপাসা তৃপ্ত করে নাই। খ্ৰীনবদ্বীপের বহু বৈষ্ণবাবাসে বহু সন্ধান করিয়াও গুপ্ত বৈষ্ণবসাধনার গুহাতন্ত্র সম্বন্ধে কোন স্বপ্রসিদ্ধ প্রাচীন তন্ত্র আছে কি না, জানিতে পারি নাই । জীমন্মহাপ্রভুর নিত্যপারিবদ্ধ—যিনি শ্ৰীমহাপ্রভুকে প্রেমের অবতার বলিয়া প্রথম চিলিতে পারিয়া, কীৰ্ত্তনাননে মাতোয়ারা হইয়া, শ্ৰীমহাপ্রভুর লীলা-মহাস্থ্য প্রচার করেন—অসাধারণ পাণ্ডিত্য প্রতিভাবলেশাস্ত্রের সহিত মিলাইয়া যুক্তিতর্ক বাদে মহাপ্রভুকে লোকসমাজে অবতার প্রতিপন্ন করেন—সেই ভক্তাবতার জগদীশ পণ্ডিতের স্ত্রপাট যশড়ার কীট জীর্ণ বিগলিতপ্রায় পুথিরাশি আলোড়িত করিয়া এই বৈষ্ণবীয় মহাতন্ত্রের গলিতপ্রায় পুথিখানি জরাজীর্ণভাবে প্রাপ্ত হই। কিন্তু তাহার পাঠ উদ্ধার করাও বিষম সঙ্কট হইরা পড়ে। তাছার পর স্ত্রীবৃন্দাবন হইতে জার একখানি অল্প জীৰ্ণ পুথি সংগ্ৰহ করিয়া—উভয় পুথি মিলাইয়া পাঠউদ্ধার করিয়া এই বৈষ্ণবীয় তন্ত্রখানি পরম্যন্ধে অনুদিত, মুজিত ও প্রকাশিত হইল। আশা করি, ভক্তসম্প্রদায় এই জায়াস সংগৃহীত মহারা-তুলসীমালসদৃশ সাধনার অমূল্যনিধি গ্রহণ করিয়া সাধনপথে অগ্রসর হুইবার শুভযোগ লাভ করিবেন। তন্ত্রের মহাশক্তিই বৈষ্ণবী—বৈষ্ণবীরূপেই মহামায়ার বিচিত্র বিকাশ। সেই মান্নার প্রভাবেই জগৎ স্বই—জগৎ চালিত—সেই মায়াঘোরে আবদ্ধ হইয়া সংসারকুপ-নিবন্ধ মানব আমরা মোহান্ধকারে রজ্জতে সর্পভ্ৰম করিতেছি— আশ1মরীচিকাকে মুখস্বল্প মনে করিতেছি—আকাশকুন্থমকে লম্বনের পারিজাত দেখিতেছি—মহামায়ার লীলা-বিভ্রমে মায়ার বশে ঘুরিতেছি।