পাতা:চিঠিপত্র (দ্বাদশ খণ্ড)-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/২০১

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


)\రి) ১৭ অক্টোবর ১৯৩৫ শান্তিনিকেতন শ্রদ্ধাস্পদেষু একটা কবিতা এলে মাথায় এবং মাথা থেকে কলমের মুখে — গভীর জল থেকে হঠাৎ যেমন মাছ ধরা পড়ে বড়শিতে —পাঠাই প্রবাসীর দরবারে । সুরেন লিখেছে, চিরকুমার সভায় পদে পদে গান এব: শ্লোক, অনুবাদের পক্ষে ওগুলো সহজসাধা নয় । “শেষের কবিতা” তর্জমা করতে সুরেন রাজি ছিল কিন্তু সেটা আমার সম্মতিক্রমে কৃপালানি অনেকটা সেরে ফেলেছে । আপনি অনুরোধ করলে সুরেন হয় তো দুই বোন, মালঞ্চ অনুবাদ করতে পারে— ওর দ্রুত কলমে বেশি সময়ও লাগবেনা । তৰ্জ্জম করতে নিজেই কোমর বাধব এমন পালোয়ানি আমার কাছ থেকে এখন আর আশা করবেন না । গ্রীষ্মে কুয়োর জল অনেক নিচে নেবে গেলে টেনে টেনে জল তুলতে যেমন দম নিকলিয়ে যায়— লেখার প্রয়োজনে কথার জোগান দেওয়া অামার পক্ষে তেমনি দুঃসাধ্য হয়েছে । ইংরেজি কথার তো কথাই নেই । বাল্যকালে ইংরেজি শিক্ষায় অবহেলা করেছি এ কথাটা মাঝে মাঝে ভুলতে বসেছিলুম – কিন্তু সেই অবহেলিত অশিক্ষিত ইস্কুলপালানে বাল্যবয়স গোপনে লুকিয়ে ছিল, প্রাচীন বয়সের শিথিল শাসনের দিনে বেরিয়ে পড়েছে । যদি কিছু দিনের জন্যে যুরোপে যাই তাহলে এই ছেলেটাই কোথা থেকে হঠাৎ >bアる。