পাতা:চিঠিপত্র (দ্বাদশ খণ্ড)-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/৩৩৩

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


তোমাদের ঘাটশিলার পরিচয় আমার অজ্ঞাত নয় । সুবর্ণ রেখার উপলবন্ধুর চরের উপর প্রথম সন্ধ্যায় নিস্তব্ধ বকের দলের মৌন সভা দেখেছিলুম, আজও মনে আছে। এক সময়ে সেখানে বাস বঁাধবার কথা মনে এসেছিল, ঘটে উঠল না। একবার শান্তিনিকেতনে এসে আমার মাটির ঘরটা দেখে যেয়ো— ওর শিল্পকলা দেখে নিশ্চয় খুসি হবে । ইতি ২৬ জুন ১৯৩৫ তোমাদের রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর ~$ 2 [ eరిa ) 'S শান্তিনিকেতন কল্যাণীয়েষ্ণু , কোথাও নড়িনি, নড়বার শক্তি ও নেই দেহে । তাই বলে মনে কোরোনা তোমাদের যৌবনের সচলতাকে আমি ঈর্ষা করি । কালিদাসের যক্ষ ছিল রামগিরি আশ্রমে আবদ্ধ, পাঠিয়েছিল মেঘদূতকে নদীগিরিপারে বার্তা বহন করে । আমি আছি শান্তিনিকেতন আশ্রমে—আমার দূত মনোদৃত, তাকে যেখানে ঘোরাই সে ভূগোলের রাজ্য নয়—সে বার্তা বহন করে নিয়ে আসে অামারই কাছে—আনন্দে আছি । কেবল ভূতপূৰ্ব্ব কৰ্ম্মের দায় এখনো স্বন্ধে চেপে আছে, সেটাকে নামাতে পারলে আর কোনো নালিশ থাকে না । “লেখt তে লিখেছি ঢের” লেখনী এখন সিভিল ডিস্ ওবৗডিয়েন্সের "రి 8