পাতা:চিঠিপত্র (সপ্তম খণ্ড)-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/১৩

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


কল্যাণীয়াস্ত্ৰ তোমাকে বিজয়ার আশীৰ্ব্বাদ জানাইবার জন্ত আমার মন উৎসুক হইল— সেইজন্য যদি চ তোমার নাম জানিনা মা, তথাপি আশাকরি, যে ভগবানের নিকট তোমার মঙ্গল প্রার্থনা করি যদি তাহার ইচ্ছা হয় তবে এ পত্র তোমার হস্তে পড়িবে। ভগবান অন্তরে বাহিরে সবর্বত্রই আছেন— তাহারই আলোক আকাশ পরিব্যাপ্ত করিয়া তোমার প্রতি দৃষ্টিপাত করিতেছে র্তাহারই বায়ু প্রতি মুহূৰ্ত্তে নিশ্বাসরূপে অন্তরের মধ্যে গ্রহণ করিতেছ; তাহারই সঙ্গে তোমার একান্ত যোগ ত এক মুহূৰ্ত্তকালও বিচ্ছিন্ন নাই— যিনি এমন করিয়া ধরা দিয়াছেন সেই অন্তর্যামীকে যে কেমন করিয়া পাওয়া যায় তাহ কেহ বলিতে পারেন না । তিনি কাহার কাছে কখন কেমন করিয়া যে দেখা দেন তাহা তিনিই জানেন— কিন্তু ইহা নিঃসন্দেহ জানিয়ো তিনি কাহাকেও পরিত্যাগ করেন নাই এবং করিবেন না। উপনিষদে ঋষি একটি কথা বলিয়াছেন—স এব বন্ধুর্জনিতাস বিধাতা— ইহার তাৎপৰ্য্য এই যে, যিনি আমাদের সৃষ্টি করিয়াছেন তিনি আমাদের বন্ধু— কারণ বন্ধুই যদি না হইবেন তবে সৃষ্টি করিলেন কেন ? তিনি এই নিমেষেই আমাদিগকে লুপ্ত করিতে পারেন। সেই যে আমাদের জনিতা অর্থাৎ পিতা এবং বন্ধু— স বিধাতা— তিনিই আমাদের