পাতা:চিঠিপত্র (সপ্তম খণ্ড)-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/১৬৭

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


১২ ২৫ এপ্রিল ১৯১০ खै বোলপুর কল্যাণীয়াসু মা, তুমি আমার নববর্ষের আশীৰ্ব্বাদ গ্রহণ কর । জীবনে সকল অবস্থাতেই এবং সংসারের সকল সম্বন্ধের মধ্যেই তোমার চিত্ত নম্রভাবে এবং আনন্দে তাহার বিধানকে স্বীকার করিয়া লইবার বল লাভ করুক। তোমার সরল হৃদয়টি সত্যে উজ্জল হইয়া উঠুক এবং বাহিরে যে কোনো অভাব থাক তোমার অন্তরের পূর্ণতাদ্বারা সমস্তকেই তুমি মঙ্গলে ও মাধুৰ্য্যে আনন্দময় করিয়া তোলো । আমাদের এখানে নববর্ষের দিনে উৎসব হইয়াছিল। তাহার পর হইতে অত্যন্ত ব্যস্ত ছিলাম। আজ বিদ্যালয়ের ছুটি হইয়াছে আজ হইতে কিছুদিনের জন্য অবকাশ পাইব । বোধহয় বায়ু পরিবর্তনের জন্য কোথাও যাইব । কবে এবং কোথায় যাওয়া হইবে এখনো স্থির করিতে পারি নাই । মা, তোমার যখন ইচ্ছা হয় আমাকে চিঠি লিখিয়ে । এক এক সময় আমি ব্যস্ত থাকি, তা ছাড়া আজ কাল ক্লাস্তি ও আলস্যে সব সময় পত্রাদি লিখিতে পারি না— যদি কখনো উত্তর না পাও বা বিলম্ব ঘটে কিছু মনে করিয়ো না । তুমি নিশ্চয় জানিয়ো তোমার মঙ্গল হয় এই আমার অন্তরের কামনা । ংসারের কল্যাণরূপিণী হইয়া থাক— তোমার চরিত্রের দীপ্তিতে X & X