পাতা:চিত্রাবলি - দুর্গাদাস লাহিড়ী.pdf/১০০

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


চিত্রাবলি। 萨” “ সন্ধানে, শয়ন-ঘরের মেজে খুড়িয়া, বালকের গলিত স্খলিত মৃতদেহ বাহির করা হয়। মাদ্রাজের উচ্চ বিচারালয়, বিচারে ব্রাহ্মণ-পত্নীর যে দণ্ডবিধান করেন, সংবাদপত্র-পাঠক অনেকেই সে সংবাদ অবগত আছেন ; তাহার আর পুনরুল্লেখ নিম্প্রয়োজন। তবেই বুঝুন, এ সংসারে সম্ভব অসম্ভব কিছুই নাই। হলধর বদ্ধন যে আপন পীড়িত স্ত্রী-পুত্রকে পরিত্যাগ করিয়া, পলায়ন করিবে, তাহাতে আর আশ্চৰ্য্য কি ? মাহ হউক, কমল যখন শুনিতে পাইলেন,-হলধর বন্ধন আপন স্ত্রী-পুত্রদিগকে ঐ অবস্থায় ফেলিয়া পলায়ন করিয়াছে, তিনি তখন তাহাদের পরিচর্য্যার ব্যবস্থা করিতে যত্নবতী হইলেন। সেই সময়ই, র্তাহারই চোখের উপর, হলধরের স্ত্রী প্রাণত্যাগ করিল। কিন্তু, মৃত্যুর পূৰ্ব্বে ছলছল নেত্ৰে কমলার প্রতি চাহিয়, অভাগিনী বলিয়া গেল,-“আমার আর কেউ নেই মা ! ঐ ছেলে-মেয়ে দু’টি রইলো ; যদি বঁাচাতে পারেন, বাচান। ও দুটীর ভার আপনার হাতেই দিয়ে গেলাম আজ !” এই কথা-কয়েকটি কহিয়া যেদিন হলধর গৃহিণী ইহলোক পরিত্যাগ করিল, সেই দিন হইতেই তাহার পুত্র-কম্ভ-দুটির লালন-পালনের তার কমলার উপর ন্যস্ত হইয়াছে। কমলা প্রথমতঃ সুচিকিৎসার সুব্যবস্থায় তাহাদিগের জীবন-রক্ষা করিয়াছেন ; তার পর তাহাদিগকে আপন আলয়ে আনয়ন করিয়া সন্তানের ছায় লালন-পালন ੋ-- -گاه سباسا 翰锦