পাতা:জ্ঞাতি শত্রু - প্রিয়নাথ মুখোপাধ্যায়.pdf/১২

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা হয়েছে, কিন্তু বৈধকরণ করা হয়নি।

১২

দারোগার দপ্তর, ২০২ সংখ্যা।


 শক্তিসাধন সেই বিছানার উপর বসিতে অনুরোধ করিলেন। বিছানার একপার্শ্বে দুইটী বৈঠকে দুইটি বাঁধান হুঁকা ছিল। একটী ব্রাহ্মণের, অপরটী শূদ্রের। আমরা উভয়ে বসিবামাত্র একজন ভৃত্য (বেয়ারা) এক কলিকা তামাকু লইয়া অগ্নিতে ফুৎকার প্রদান করিতে করিতে গৃহমধ্যে প্রবেশ করিল এবং বৈঠক দুইটীকে আমাদের নিকট আনয়ন করিয়া, হস্তস্থিত কলিকাটী ব্রাহ্মণের হুঁকার উপর বসাইয়া শক্তিসাধনের হস্তে দিয়া প্রস্থান করিল।

 শক্তিসাধন ভৃত্যের হস্ত হইতে হুঁকাটী গ্রহণ করিয়া আমাকে দিলেন। কিন্তু আমি ধূমপান করি না জানিতে পারিয়া বিশেষ লজ্জিত হইলেন। আমি তাঁহাকে বলিলাম, “এখন যে জন্য এখানে আসিলাম, তাহার কি করিতেছেন? আপনার দাদার কিরূপে মৃত্যু হয় এবং কখনই বা তাঁহার রোগের সূত্রপাত হয় সমস্ত কথা প্রকাশ করুন।”

 শক্তিধন উত্তর করিলেন, “পূর্ব্বেই বলিয়াছি, গত কল্য এ বাড়ীতে একটা ভোজ ছিল। নিমন্ত্রিত ব্যক্তিগণের আহারাদির পর আমরা কয়েকজন বিশেষ আত্মীয় ব্যক্তি দাদার সহিত এক সঙ্গে আহার করিতে বসি। বেলা দুইটার পর আমাদের আহার শেষ হয়। আমিও এই বৈঠকখানায় আসিয়া একপার্শ্বে শয়ন করি। এক ঘণ্টার মধ্যেই অন্যান্য সকলে স্ব স্ব গৃহে প্রত্যাগমন করেন। কেবল আমিই এইখানে ছিলাম। বেলা বারটায় সময় শুনিলাম, দাদা বমি করিতেছেন। আমি তখনই বাড়ীর ভিতরে গমন করিলাম এবং ডাক্তার বাবুকে সংবাদ দিবার জন্য লোক প্রেরণ করিতেছিলাম, কিন্তু দাদা আমাকে স্বয়ং নিষেধ করিলেন। তিনি বলিলেন, গুরু আহার বশতঃই ঐরূপ বমি