পাতা:নবীন - রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/১৯

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা হয়েছে, কিন্তু বৈধকরণ করা হয়নি।

১৬

নবীন

ওগো নিদারুণ পথ, জানি,
জানি পুন নিয়ে যাবে টানি’
তা’রে,  চিরদিন মোর যে-দিল ভরিয়া
যাবে সে স্বপনবৎ॥

 তবু ওকে ক্ষণকালের বাঁধন পরিয়ে দিতে হবে। টুকরো টুকরো সুখের গাথবো—পরাবো ওকে মাধুয্যের মুক্তোগুলি। ফাগুনের ভরা সাজি থেকে যা কিছু ঝ’রে ঝ’রে প’ড়্চে কুড়িয়ে নেবো, বনের মর্ম্মর, বকুলের গন্ধ, পলাশের রক্তিমা—আমার বাণীর সুত্রে সব গেঁথে বেঁধে দেবো ভা’রমণিবন্ধে। হয়তো আবার আর-বসন্তেও সেই আমার-দেওয়া ভূষণ প’রেই সে আসবে। আমি থাকবো না, কিন্তু কি জানি, আমার দানের ভূষণ হয়তো থাকবে ওর দক্ষিণ হাতে।

ফাগুনের নবীন আনন্দে
গানখানি গাঁথিলাম ছন্দে।
দিল তা’রে বনবীথি
কোকিলের কলগীতি
ভরি’ দিল বকুলের গন্ধে॥
  মাধবীর মধুময় মন্ত্র
  রঙে রঙে রাঙালো দিগন্ত।
বাণী মম নিল তুলি’
পলাশের কলিগুলি,
  বেঁধে দিল তব মণিবন্ধে॥