প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:নারীর মূল্য-শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়.djvu/৫৭

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


নারীর মূল্য t\ জন্য অন্তঃপুরে পাঠাইয় দেয়। তাহার হাত-পা বাধা-স্ত্রীলোকদিগের সবচেয়ে বড় আমোদ খোচা দিয়া তাহার চোখ তুলিয়া ফেলা । স্ত্রীলোকেরা সেই হতভাগাকে ঘিরিয়া দাড়াইয়াকেহ বা চোখ তুলিতে থাকে, কেহ ছুরি দিয়া পেট কাটিয়া নাড়ী বাহির করিতে থাকে, কেহ পাথর দিয়া দাঁত ভাঙ্গিতে থাকে ; সে যত চেঁচায়, ইহারা ততই আমোদ পায়। এই সেই দেশের নারী, অথচ অসভ্য কেন, সুসভ্যের মধ্যেও তাহাদের মত পতিভক্তি ও সতীত্ব পাওয়া কঠিন। তবে, কেমন করিয়া এমন সম্ভব হইল ? সতীত্বে যাহাদের প্রায় সমকক্ষ নাই, কি দোষে, কাহার পাপে সেই নারী-হৃদয় এমন পাথরের মত হইয়া গেল ? নারী-সম্বন্ধে পুরুষের সহৃদয়ত ও হ্যায়পরতার পরিচয় দিতে গিয়৷ অনেক নজীর এবং অনেক কথা বলিয়া ফেলিয়াছি, আর বলিতে চাহি না। কারণ, ইহাতেও যদি যথেষ্ট না হইয়া থাকে ত আর হইয়াও কাজ নাই। অতঃপর আর দুই-একটা স্থূল কথা বলিয়াই এ প্রবন্ধ শেষ করিব। আগে নর-নারীর নানাবিধ সম্বন্ধের উল্লেখ করিয়া প্রথমেই দাম্পত্য সম্বন্ধের আলোচনা করিয়াছি। তাহার হেতু শুধু ইহাই নহে যে, যেখানে অন্যান্ত সম্বন্ধ অস্পষ্ট, সেখানেও ইহা স্পষ্টতর, অপিচ জীবমাত্রেই সমস্ত সম্বন্ধ হইতে ইহার আকর্ষণও তেমন দৃঢ়তর, স্পৃহা ও মোহও তেমনি দীর্ঘ-কালব্যাপী । আমাদের দেশের বিজ্ঞজনেরাও বলিয়াছেন, ছয়টLরসের মধ্যে মধুর রসটাই শ্রেষ্ঠ । এই শ্রেষ্ঠ রসের উৎপত্তি মানবের যৌন বন্ধন হইতে । বস্তুতঃ, সামাজিক মানব যত প্রকারের সম্বন্ধে রস-ভোগ করিতে শিখিয়াছে, সর্বশ্রেষ্ঠ এই মধুর রসের মধ্যেই যাবতীয় রসের সমাবেশ ও বিকাশ দেখিতে পাওয়া যায়, এবং এইজন্যই একটু লক্ষ্য করিয়া দেখিলেই চোখে পড়ে, যে-কোন দেশে এই রসের ধারণা যত ক্ষীণ, বন্ধন যত ক্ষণস্থায়ী ও ভগ্নপ্রবণ, নর-নারীর অপরাপর সম্বন্ধেও সেখানে সেই অনুপাতে হীন । জগতের যে কোন দেশ