প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:নিষ্কৃতি নাটক শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়.djvu/৭৭

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


নিষ্কৃতি তৃতীয় অঙ্ক সিদ্ধে। বেশ, তুমি না পার, আমি মণিকে পাঠিয়ে নগেন উকিলের কাছ থেকে লিখিয়ে আনছি। হরিশ। কোন উকিলই এই ব্যাপার নিয়ে চিঠি দেবে না বৌঠান । তবে তাকে যদি জব্দ করতে চাও—তাহলে অন্য কোন দাবী দাওয়া উত্থাপন করে বা বিষয় সম্পত্তির ব্যাপার নিয়ে তাকে জব্দ করা যেতে পারে। আর আমাদের উচিতও এখন তাই করা । সিদ্ধে। তোমার উচিত তোমার থাক ঠাকুরপো! আমার তিনকাল গিয়ে এককালে ঠেকেছে—এখন আমি মিথ্যে দাবী-দাওয়া উত্থাপন করতে পারবো না – হরিশ। তবে আমি আর কী করব ? হরিশ প্রস্থান করিল। সিদ্ধেশ্বরী সেইভাবেই বসিয়া রহিলন । অপর দিক হইতে সরকার গণেশ চক্রবর্তী প্রবেশ করিলেন । গণেশ । মা ! সিদ্ধে । কে ? ও-গণেশ । গণেশ । ই্যা মা, এই হিসেবটা— সিদ্ধে। দেখ গণেশ, তোমার কী হিসেব দেবার একটা সময় অসময় নেই ?— গণেশ। কী করি মা ! আপনাদের টাকা নিয়ে নাড়া-চাড়া করি ; গরীব মানুষ, পাছে টাকা পয়সার গণ্ডগোল হয়ে যায়, তাই তাড়াতাড়ি হিসেব-নিকেশ বুঝিয়ে দিয়ে থালাপ হতে চাই— সিদ্ধে । কিন্তু আমারও ত একটা সময়-অসময় অাছে গণেশ। দাও কী হসেব দেবে, দাও— গণেশ । আপনি আমায় থয়ুচের জন্তে যা দিয়েছিলেন—তার মধ্যে মণিহারী দোকানে বাকী ছিল বারে টাকা, মেজমার ছেলেমেয়েদেৱ