প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:পণ্ডিতমশাই-শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়.djvu/১১৪

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


Ꮌ Ꮌ8 পণ্ডিতমশাই মানলে না, তখনি জানি, ওর উপর বিধি বাম । আর রক্ষে নেই ! হাতে হাতে ফল দেখলে তারিণী ? তারিণী মনে মনে অপ্রসন্ন হইয়া কহিল, আর আমি ! সে দিন পুকুরু-পাড়ে দাড়িয়ে পৈতে হাতে করে বলেছিলাম, নিৰ্ব্বংশ হ । খুড়ে, আহ্নিক না করে জলগ্রহণ করি নে! এখনও চন্দ্র স্বৰ্য্য উঠ চে, এখনও জোয়ার ভাট খেলটে! বলির ব্যাধ যেমন করিয়া তাহার স্ব-শরবিদ্ধ ভূপাতিত জন্তুটার মৃত্যু-যন্ত্রণার প্রতি চাহিয়া, নিজের অব্যৰ্থ লক্ষ্যের আস্বাদন করিতে থাকে, তেমনি পরিতৃপ্ত দৃষ্টিতে চাহিয়া তারিণী এই একমাত্র পুত্ৰশোকাহত হতভাগ্য পিতার অপরিসীম ব্যথা সৰ্ব্বাগ্রে উপভোগ করিতে লাগিল । কিন্তু বৃন্দাবন উঠিয় দাড়াইল। প্রাণের দায়ে সে অনেক সাধিয়াছিল, অনেক পলি {{ i, আর একটি কথাও বলিল না । নিদারুণ অজ্ঞান ও অন্ধতম মুঢ়ত্বের অসহ অত্যাচার এতক্ষণে তাহার পুত্র বিয়োগ বেদনাকেও BBBBB BBB KBB BBBBBB KKBBS BBBS BBB BBBBB মঙ্গল কামনার ফলে এই দুই স্বধৰ্ম্মনিষ্ঠ ব্রাহ্মণের কাহার গায়ত্রী ও সন্ধু্যাআহিকের তেজে সে নিৰ্ব্বংশ হইতে বসিয়াছে, এই বাকুবিতণ্ডার င္အား মীমাংস নী শুনিয়াই সে নি:শব্দে ধীরে ধীরে বাহির হইয়া গেল, এবং বেল} দশটার সময় নিরূদ্বিগ্ন শান্ত মুথে পীড়িত সন্তানের শব:া: পাশ্বে আসিয় । দাড়াইল । g - কেশব তখন আগুন জানিয়া চরণের হাতে পায়ে সেক দিতেছিল এবং তাহার নিদাবতপ্ত মৃত্যুথার সহিত প্রাণপণে যুঝতেছিল । বৃন্দবনে? মুখে সমস্ত শুনিয়া બ છેઃ-રક્રિશ માંક રાજ્ઞ માં ડેઉન હઃ একটা উড়নি কাধে ফেলিয়া বলিল, কাকত চলখুন। যদি ডাক্তার পাই, সন্ধ্যা নাগাদ ফিল্গুধ, না পাই, এই দাওয়াই শেষ যাওয়া ।