প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:পণ্ডিতমশাই-শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়.djvu/১২৫

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


পঞ্চদশ পরিচ্ছেদ ১২৫ উঠিল, বৃন্দাবন, মানুষ হবার কত বড় সুযোগই না আমাকে দিয়ে গেলে । দশ বছর পরে একবার দয়া করে ফিরে এসে, দেখে যেয়ে তোমার জন্মভূমিতে লক্ষ্মী-সরস্বতীর প্রতিষ্ঠা হয়েছে কি না ! দুর্গাদাস ও অবিনাশ ডাক্তার উভয়েই এই দুটি বন্ধুর মুখের দিকে শ্রদ্ধায়, বিস্ময়ে পরিপূর্ণ হইয়া চাহিয়া রহিল। পরদিন বৃন্দাবন ভিক্ষার বুলিমাত্র সম্বল করিয়া বাড়ল ত্যাগ করিয়া যাইবে এবং ঘুরিতে ঘুরিতে যে কোন স্থানে নিজের কৰ্ম্ম-ক্ষেত্র নির্বাচিত করিয়া লইবে । কেশব তাছাকে তাহদের গ্রামের বাড়িতে গিয়া কিছুকাল অবস্থান করিতে পুনঃ পুনঃ অনুরোধ করিয়াছিল, কিন্তু বৃন্দাবন সম্মত হয় নাই। স্ট্ররণসুখ-দুঃখ সুবিধা-অসুবিধাকেসে সম্পূর্ণ উপেক্ষা করিতে চাহে । যাত্রার উদ্যোগ করিয়া সে দেবসেবার ভার পুরোহিত ও কেশবের উপর দিয়া দাসদাসী প্রভৃতি সকলের কথাই চিন্তা করিয়াছিল। মায়ের সিন্দুকের সঞ্চিত অর্থ তাহাদিগকে দিয়া বিদায় করিয়াছিল। , শুধু কুম্বমের কথাই চিন্তা করিয়া দেখে নাই। প্রবৃত্তিও ছয় নাই, আবশ্বক বিবেচনাও করে নাই। যে দিন সে চরণকে আশ্রয় দেয় নাই, হইতে তাঙ্গর প্রতি একটা বিতৃষ্ণর ভাব জমি উঠুিতছিল, .. o: তাঙ্গর মৃত্যুর পরে অনিচ্ছা সত্ত্বেও বিদ্বেযে রূপান্তরিত হইয়া উঠিয়াছিল। তাই কেন কুসুম আসিয়াছে, কি করিয়া আসিয়াছে, কি "ছে, এ সম্বন্ধে কিছুমাত্র খোজ লয় নাই এবং না লইয়াই নিজের গবিয়া রাখিয়াছিল, “আপনি আসিাধু শ্ৰাদ্ধ শেষ হইয়া গেলে fীনু গিয়া যাইবে। সে আসার পরে, যক্ষ কাৰ্যোপলক্ষে বাধ্য 弹 কয়েক বার কথা কহিয়াছিল, কিন্তু তাঙ্গর মুখের ¥নে সেদি কালে ছাড়া আর চাহিয়া দেখে নাই। ও-দিকে কুসুমও তাছার সহিত શ করিবার বা কথা কহিবার লেশমাত্র চেষ্টা করে নাই। .

  •  !