প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:পণ্ডিতমশাই-শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়.djvu/২৪

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


.** 38 পণ্ডিতমশাই দিয়ে আশীৰ্ব্বাদ করলুম, বেীমা পায়ের ধূলো মাথায় নিয়ে চুপ করে দাড়াল। তখন বুঝেছি, আমার মাথার ভার নেমে গেছে। তুই দেখিস দিবি, প্রথম যে দিন একটা ভাল দিন পাব, সেই দিনেই ঘরের লক্ষ্মী ঘরে আনৃব। বৃন্দাবন ক্ষণকাল মৌন থাকিয়া জিজ্ঞাসা করিল, কিন্তু এসে তোমার ংশধরটকে দেখবে ত ? s মা তৎক্ষণাৎ বলিলেন, দেখবে বৈকি। সে ভয় আমার নাই । কেন নেই মা ? মা বলিলেন, আমি সোনা চিনি বৃন্দাবন ! অবশু খাটি কিনা, এখন বলতে পারি নে, কিন্তু পেতল নয়, গিল্ট নয়, এ কথা তোকে আমি নিশ্চয় বলে দিলুম। তা নইলে আমার সংসারে তাকে আন্‌ার কথা তুলতুম না ? হারে বৃন্দাবন, বেীমা কি তোর সঙ্গে বরাবরই কথা কয় ? কোন দিন নয় মা ! তবে আজ বোধ করি বিপদে পড়েই, বলিয়া বৃন্দাবন একটুখানি হাসিয়া চুপ করিল। - মা এক মুহূৰ্ত্ত স্থির থাকিয়া ঈষৎ গম্ভীর হইয়া বলিলেন, সে ঠিক কথা বুছা । তার দোষ নেই ; সবাই এমনই । মানুষ বিপদে পড়লেই তখন যথার্থ আপনার জনের কাছে ছুটে আসে । আমি ত মেয়েমানুষ বৃন্দাবন, তবুও সে তার দুঃখের কথা আমাকে জানায় নি, তোকেই নিয়েচে । ... t + বৃন্দাবন চুপ করিয়া শুনিতে লাগিল। - ২ তিনি পুনরায় কলিন, আমার আর একটা কাজ স্ট্র , সেটা কুঞ্জনাথকে সংসারী করী,বলিয়াই তিনি নিজ মনে হাসি উঠিলন । শেষে বলিলেন, বে লোক, পাড়া-শুদ্ধ নেমূলুল্ল ক’রে বাড়ি ছেড়ে পালিয়ে গেল-তারপর যা হয় তা হোক।