প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:পণ্ডিতমশাই-শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়.djvu/৫২

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


¢२ পণ্ডিতমশাই কঁচা-সোনার রঙ—লোকে বলে, মন না মতি, পা ফস্কাতে মন্টিলতে . কতক্ষণ বাছ ? w - কুঞ্জ সায় দিয়া বলিল, সে ঠিক কথা মা । , কুহুম সহসা মুখ তুলিয়া ভীষণ অকুটি করিয়া কম্বুি, তুমি এখানে বসে ক্লি কচ দাদা ! উঠে যাও । কুঞ্জ থতমত খাইয়া উঠিতে গেল, কিন্তু তাহার শাশুড়ী উষ্ণ হুইয়া বলিলেন, দাদাকে ঢাকুলেই ত আর লোকের চোখ ঢাকা পড়বে না বাছ ? এই যে তুমি নদীতে চান করে, ভিজে কাপড়ে চুল এলিয়ে দিয়ে এলে, ও দেখলে মুনির মন টলে কিন, তোমার দাদাই বুকে হাত দিয়ে বলুক দেখি ? কুসুম চেচাইয়া উঠিল, তোমার পায়ে পড়ি দাদ, দাড়িয়ে দাড়িয়ে শুনো না--যাও এখান থেকে । তাহার চীৎকার ও চোখ মুখ দেখিয়া কুঞ্জ শশব্যস্তে উঠিয়া পলাইল । কুসুম উনান হইতে তরকারির কড়াটা দুস্থ করিয়া নির্চে নামাইয়া দিয়া ক্রতপদে ঘর হইত্বে বাহির হইয়া গেল। - কুঞ্জর শাশুড়ী মুখ কালি করিয়া বসিয়া রছিলেন। তাঙ্গর সমকক্ষ কাহ-বীর সংসারে নই, ইহাই ছিল তাহার ধারণা ; এই সহায়-সম্বল-হীন . মেট্রেট, তাহাকে যে হতভম্ব করিয়া দিয়া উঠিয়া যাইতে পারে, ইহা তিনি স্বপ্নেও ভাবেন নাই । অষ্টম পরিচ্ছেদ কেন, তাহা না বুঝিলেও সে দিন দাদার শাশুড়ী যে ..াদ-সঙ্কল্প করিয়াই এখানে আসিয়ছিলেন তাঁহাতে কুকুমের সন্দেহ ছিল না। তা ছাড়া তাহার কথার মৰ্ম্মট ঠিক এই রকম গুনাইল, যেন বৃন্দাবন এক সময়ে গ্রহণেচ্ছুক থকা সত্ত্বেও কুসুম বিশেষ কোন গৃঢ় কারণে যায় নাই।