পাতা:পাল ও বর্জিনিয়া.pdf/১১২

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


পাল ও বর্জিনিয়া । Y c > याcजद्र शृङिक नकल cशोङ इहेग्ना बाश्ब्रि इहेग्नाटछ । পক্ষি সকল ৰুক্ষের শাখায় বসিয়া চিচিকুচি ধ্বনিতে আৰ্ত্তনাদ করিতেছে। এই সমস্ত অশুভ ঘটনা দর্শনে তাহারা উভয়ে অতিশয় খেদ প্রকাশ করিতে লাগিল । পরে বড় সাধের বিনোদপদ উৎসল্প হইয়া গিয়াছে নয়নগোচর করিয়া বজ্জিনিয়া পালকে সম্বোধন করিয়া কহিল “ দাদা ! তুমি পৰ্ব্বতের নানা স্থান হইতে বে সকল কুলায় অন্বেষণ করিয়া এখানে আনিয়াছিলে সে সকল এ ঝটিকায় এককালে বিনষ্ট হইয়া গিয়ছে । আর এত যে পরিশ্রম করিয়া উদ্যানে, বৃক্ষ সকল রোপণ করিয়াছিলে তত্ত্বাবতই ধ্বংস প্রাপ্ত হইয়াছে । হায়ই ! পৃথিবীর যত বস্তু সকলই বিনশ্বর ! কেৰল আকাশেরই পরিবর্তনাদি কখন দৃষ্ট হয় না ’ । এইরূপ খেদের কথা শুনিয়া পাল উচ্চৈঃস্বরে কহিতে লাগিল “ বজ্জিনিয়ে ! দেখ দেখি কি ক্ষোভের ৰিষয় ! আমি তোমাকে কখনই কোন অবিনশ্বর আশ্চর্য্য বস্তু আনিয়া দিতে পারিলাম না । পৃথিবীমণ্ডলেতেও এমন কোন বস্তু নাই যে তাহা তোমাকে দিলে আমার সাতিশয় ভূপ্তি জন্মিতে পারে” । বজ্জিনিয়া এই কথা শুনিয়া লজ্জায় নম্ৰমুখে কহিতে লাগিল “ দাদা ! তোমার নিকট যে কিছু নাই এ কথা কে বলিবেক ? তোমার নিকট একখানি ছবিত আছে” বজ্জিনিয়ার মুখ হইতে এই কথা বহির্গত হইতে ন হইতেই পাল তথা হইতে সত্বরে ধাৰমান আসিয়া, তদন্বেষণার্থ নিজ জননীর গৃহমধ্যে প্রবেশ করিল এবং অবিলম্বে তাহ+ লইয়া গিয় তাহার হস্তে সমর্পণ করিল।