পাতা:পাল ও বর্জিনিয়া.pdf/১২২

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


পাল ও বর্জিনিয়া। > S > তোমার এই সাধুশীলা বালিকাকে তথায় প্রেরণ করিয়া সেই প্রচুর ঐশ্বৰ্য্যের ঈশ্বরী কর, ইহা অস্বীকার করা তোমার পক্ষে মঙ্গল-দায়ঞ্চ নছে । আমি ভোমান্তক বিশেষ করিয়া অবগত করিতেছি, তোমার পিসী তোমার স্বদেশগমনের বিশিষ্ট উপায় করিয়াছেন । এবং আমিও কোন ২ মহাশয়ের পত্ৰ পাইয়াড়ি । জাহার। এ বিষয়ে অনুরোধ করিয়াছেন । যদি তুমি স্বেচ্ছ পুৰ্ব্বক স্বদেশ যাত্রায় উদ্যম না কর, তাহ হইলে আৰশ্যক মতে যেরূপে তোমার তথায় গমন হয় তদ্বিযয়ে অামাকে যথাশক্তি চেষ্টা করিতে হইবেক, কিন্তু তোমার প্রতি আমার তাদৃশ ক্ষমতা প্রকাশ করিবার বাসনা কোন মতেই হয় না । কিসে এই উপদ্বীপের নিবাসিগণের মুখসমৃদ্ধি উৎপন্ন হয় তাহাই আমার মুখ্য উদেশ্য । যাহাহউক, এক্ষণে তুমি আপন ইচ্ছায় স্বদেশ গমনের অঙ্গীকার কর এই অামার মানস । তথায় গেলে পর তোমার পক্ষে যাবজ্জীৰন মুখ তোগ ও তোমার কন্যারও পরম মুখসম্ভোগে সংসারযাত্রা নিৰ্ব্বাহ করা অনায়ামেই হইতে পারিবেক । যে লোকেরা স্বদেশে ধম পাইতে ম; পারে তাহারাই তাহা ত্যাগ করিয়া এই উপদ্বীপে আসিয়া রহিয়াছে । অতএব যদি এই বিদেশ পরিত্যাগ পুৰ্ব্বক স্বদেশ গমন করিলেই তোমার প্রভূত ধন হস্তগত হয়, তবে তোমার তথায় যাইবার আপত্তি কি ? ” । এই সকল কথা বলিয়া শাসনাধিপতি সমভিব্যাহারী একজন দাসকে সঙ্কেত করিলে পর, সে এক-থৈলী স্বর্ণমুদ্রা লইয়। নিকটস্থ হইল । তখন তিনি কহিলেন