পাতা:পাল ও বর্জিনিয়া.pdf/১২৬

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


পাল ও বর্জিনিয়া । S X (t দেখিব, ইহার চেয়ে আমার আহলাদের বিষয় অার কি আছে ? আপনার কথায় নির্ভব করিয়া কহিতেছি, ভাবি মুখোদেশে তাহাকে ফান্সদেশে পাঠাইতে আমার কোনমতেই মতান্তর নাই । অসামর্থ্য প্রযুক্ত আমার তথায় নিজে যাওয়া দুর্ঘট হইয়া উঠিয়াছে, কিন্তু এতদুপলক্ষে বর্জিনিয়াকে একবার তথায় প্রেরণ করা আমার নিতান্ত কৰ্ত্তব্য বটে, কিন্তু এ বিষয়ে অামার বল প্রকাশ করা চলিবেক না । তাহার যেমন ইচ্ছা হয় তাহাই হইবেক । ৰিবি দিলাতুর মনে ২ বিবেচনা করিলেন, পাল ও বর্জিনিয়াকে কিছু কালের জন্য পৃথক করিলে, পরে তাহার যৎপরোনাস্তি সুখী হইবেক । অতএব তাহাকে ন পাঠান ভাল নহে । ইহা ভাবিয়া বজিনিয়াকে নিকটে অস্থানপুৰ্ব্বক কহিতে লাগিলেন “ বৎসে ! আমাদের দাস দাসীরা ত বৃদ্ধ হইয়া অকঝুণ্য প্রায় হইয়াছে। আর শৈশবাবস্থা প্রযুক্ত এখন পালকেও কোনমতে সৰ্ব্বকার্যক্ষম বলা যাইতে পারে না। অপর প্রিয়সখী মার গ্রেটেরও বয়স কিছু স্থান, বলা যায় না, আমি ত নিজে ক্ষীণভা নিবন্ধন অকৰ্ম্মণ। প্রায় হইয়া পড়িয়াছি। এক্ষণে যদি আমার মরণ হয় তাহ হইলে এই অনাথমণ্ডলীতে জীবিকা ব্যতিরেকে তোমার কি গতি হইবেক বল দেখি ? অসহায় নিরুপায় হইয়া দাড়াইলে কে তোমার মুখ চাহিয়া কিছু সাহায্য করিৰে, আমি তাহ ভাৰিয়াই পাইতেস্থি ন। উপায়াস্তরের অভাব হইলে তোমাকে উদরের . দায়ে কাজেই অবিশ্রান্ত শ্রম করিয়া দিনপাত করিতে