পাতা:পাল ও বর্জিনিয়া.pdf/১৩৩

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


$ २ २ পাল ও বজিনিয়া। “মহাশয় । আমার ভগিনী ত অামাকে পরিত্যাগ করিয়া চলিলেন । ৰোধ হয় তিনি এক্ষণে ফুন্সি যাত্রাব উদেযাগ করিতেছেন । অতএব প্রার্থনা করি আপনি একবার অনুগ্রহ করিয়৷ আমাদের বাটীতে আমুন, এবং মাত্তাদিগকে বুঝাইয়া ৰলুন যেন উাহার। এ বিষয়ের মনন হইতে এককালে ক্ষান্ত হয়েন ’ । পালের তাদৃশ কাতরতা দর্শনে ও কাকুক্তি শ্রৰণে আমি তৎকালীন তাহার নিকট স্বীকার না করিয়া থাকিতে পারিলাম না । কিন্তু আমার ধ্ৰুৰ জ্ঞান ছিল যে তদ্বিষয়ে আমার পরামর্শ দানে কোন বিশেষ কল দর্শিবেক না । এদিকে পালের মন অনুক্ষণ চিন্তাকুল দেখিয়া একদ{ তস্মাত মার গ্রেট তাহাকে নিকটে ডাকিয় কহিলেন “হারে বৎস! তুমি দিবানিশি কি ভাবন কর বল দেখি ? এতাদৃশ ভাৰনায় নিরস্তর কালষাপন করিলে উত্তরকালে তোমাকে যে যৎপরোনাস্তি নিরাশ হইতে হইবেক । আপনাদের জীবনবৃত্তাস্তত কিছুই অবগত হও নাই । এক্ষণে সে সকল তোমার নিকট ব্যক্ত করিতেছি প্রবণ কর, তাহা হইলে নিগৃঢ় কথা জানিতে পারিৰে । আমার প্রিয়সখী ৰিবি দিলাতুর নিজে সদ্বংশজাত ও সাতিশয় ভদ্র । তুমি ७क खान आङि जांभांना झब्लिग्न क्लब८का अtदश नलन । উtহার সহিত তোমার তুলনা করিতে গেলে তোমার যৎপরোনাস্তি নীচত্ব প্রকাশ হইৰেক সন্দেহ নাই । , পাল “অবৈধ সন্তান ” এই শব্দের অর্থ বুঝিতে ন পারিয়া মাতাকে জিজ্ঞাসিতে লাগিল “ম! তুমি