পাতা:পাল ও বর্জিনিয়া.pdf/১৫

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


§§ উপক্রমণিকা । আছে, বাতাহত হইলে তাহার পাতার শব্দ শুনাও দুর্ঘট । তথাকার দিবসের আলোক একপ্রকার তেজোহীন বোধ হয় । ঠিক মধ্যাহ্র কালেও তথায় রৌদ্র প্রখর বোধ হয় না । তাহ দেখিলে বোপ হয় যেন দিবাকর প্রচণ্ড কিরণ হারাইয়া বসিয়াছেন । বিশেষতঃ প্রাতঃকালে তথাকার এক আশ্চৰ্য্য শোভ অনুভব হয় । স্থৰ্য্য উদয় হইতেছেন এমত সময়ে, এক পৰ্ব্বতের ছায়া সুর এক পৰ্ব্বতে এবং তাহার ছায়। অন্য এক পৰ্ব্বতে পতিত হয় । সেই সময়ে তাহাদের সুক্ষাগ্র চূড়াসকলের উপরি স্থৰ্যকিরণ লাগিলে, বোপ হয়, যেন নিৰ্ম্মল আকাশে সুবর্ণবর্ণ অথবা ধূপছায় বর্ণের চিত্ন দেখা যাইতেছে । আহা, কি সুদর্শন দর্শন এক মুখে কিরূপে বর্ণন করিব । । অনন্তর আমি এ দিক সে দিক বেড়াইতে ২ এবং তথায় সেই সমস্ত অসুলত চিত্তরঞ্জক বস্তুসকল দেখিতে ২ মনের মুখে কিঞ্চিৎ অগ্রসর হইয়| সেই ভগ্ন গৃহদ্বয়ের সমীপস্ত হইলাম, এবং পুৰ্ব্বকালে তাহাতে কাহার। বাস করিয়াছিল, এখন ব| তাহার কোথায়, এবং কি প্রকারেই বা তাহার তাদৃশ ধ্বংস হইয়াছে এই সকল বিষয় চিন্ত করিতে লাগিলাম । আমি বসিয়া এইরূপ চিন্তা করিতেছি এমত সময়ে এক জন রন্ধ মহাপুরুষ, অতি সামান্য বেশ পরিধান, মস্তকে পলিত কেশ লম্বমান, অতি গভীর আকার, সরল স্বভাব, হস্তে এক গাছি ক্লষ্ণবর্ণ যষ্টি অবলম্বন করিয়া, শূন্যপাদে আমার নিকটে আসিয়া উপস্থিত হইলেন । একে আমি স্বভাবতঃ প্রাচীন ব্যক্তিকে