পাতা:পাল ও বর্জিনিয়া.pdf/১৮১

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


S ૧ ૦ পাল ও বর্জিনিয়া প্রতারণা ও তোষামোদকতা ব্যতিরেকেও অনায়াসে দিন নিৰ্ব্বাহ করিতে পার । কিন্তু ইউরোপের প্রায় অধিকাংশ লোকই এইরূপ তোষামোদ দ্বারা কাল যাপন করে । পরমেশ্বর তোমাকে যে অবস্থায় রাখিয়াছেন, তাহাতে যে তোমাকে ধৰ্ম্মপথভ্রষ্ট হইতে হয় এমন নয়। তুমি এ স্থানে থাকিয়া অকপটভাবে অনায়াসে দিনপাত করিতে পার, সত্য-ধৰ্ম্ম সুচারুরূপে রক্ষা করিতে পার । অধিকন্তু এ স্থানে থাকাতে ভোমাকে ধৈৰ্য্যের মর্য্যাদা অতিক্রম করিতে হয় না, ৰিশেষতঃ তোমার সাধুতাও রক্ষা পায়, আর ভুঞ্জি সকলের অনুগ্রহভাজনও হইতে পার । এবং অঙ্গরহঃ যাহার পর নাই অমূল্য নিধি স্বরূপ ধৰ্ম্ম তোমাকর্তৃক উপাজিত হইতে পারে। আর এ সমস্ত ব্যাপার সুচারুরূপে সমাহিত হইলে তোমার নিৰ্ম্মল জ্ঞান ও বিচক্ষণতাও লোকের বোধগম্য হইবে । একবার স্থিরচিত্তে ভাবিয়া দেখ দেথি, এই উপদ্বীপে পরমেশ্বর অামাদিগকে কত মুখসাধন পদার্থ দিয়া মুখী ও সুস্থ করিয়াছেন । তিনি আমাদিগকে স্বাধীনতায় রাখিয়াছেন, আমাদূের শরীরে প্রার্থনীয় স্বাস্থ্য প্রদান করিয়াছেন, চিত্তে বুদ্ধিবৃত্তি দিয়াছেন, এবং অকপটহৃদয় মিত্র সঞ্চলও বিতরণ করিয়াছেন । আমাদের কিছুরি অভাৰ নাই। তুমি ব্যাকুল হইয় যে সকল রাজার অনুগ্রহ ও সহায়তা লাভ করিতে বাসনা করি८डफ़ ठाiभाँह भ८उठ जैtश्tझी कलाक अtभtcमद्भ भएछ মুখী নহেন ”। পাল –“মহাশয়! আমার আর কিছুতেই প্রয়ো