পাতা:পাল ও বর্জিনিয়া.pdf/২৩৪

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


পাল ও বর্জিনিয়া । २२७ এখন সে যেখানে আছে, সেই স্থানেই পরমসুখে কালহরণ করিতেছে, তাহার ভাবনা কি ? । তাহার বৰ্ত্তমান বাসস্থানের অধিপতি ন্যায়পরায়ণ জগদীশ্বর ইহাত তুমি অবগতই আছ । তুমি এই বিশ্বরাজ্যের প্রতি নিরীক্ষণ করিয়া স্থিরচিত্তে বিবেচনা কর দেখি, জগদীশ্বর কেমন দয়ালু বিবেচনা করিলে তাহার অপার অনুকম্প অবগত হইতে ক্রটি হইবে না। আর তোমার মনে ২ কি এমন আশঙ্কা হয় না যে তিনিই তোমার বজ্জিনিয়াকে লোকলীলা সম্বরণ করাইয়াছেন অর্থাৎ তিনি ইচ্ছা করিলে কি তাহাকে তরঙ্গগ্রাস হইতে বিমুক্ত করিতে সমর্থ হইতেন না ? । কারণ মনুষ্য সকল ইহ লোকে পরমসুখে কালহরণ করিবে বলিয়া যে পরমেশ্বর সুচারু নিয়ম সকল ব্যবস্থাপিত করিয়াছেন, তিনি কি বজ্জিনিয়ার জন্য পরলোকমুখের সাধন কোন বিশেষ বিধি বিধান করেন নাই সম্ভব হয় ! ! এই যে শতহ যোজন বিস্তীর্ণ মহাসাগর প্রভূতি দেখিতে পাও ; ইহার এক কণামাত্র জলও কোটিই প্রাণিসমূহে পরিপূর্ণ। ঐ সমস্ত কীটা যৎপরোনাস্তি সুক্ষ্যতম হইয়াও সেই বিশ্ব রাজের ব্যবস্থা- " পিত নিয়মে নিযন্ত্রিত হইয়া চলিতেছে । অতএব যে ধৰ্ম্মপরায়ণ হয় সে র্তাহার নিকট সমুচিত পুরস্কার ভাজন হইয়া থাকে, ইহার অন্যথা হইতে পারে না । ফল কথা এই ঐশ্বরিক নিয়মের প্রভাবে বজ্জিনিয়ও স্বৰ্গবাসিনী হইয়া সাতিশয় মুখসম্ভোগ করিতেছে ইহাতে সন্দেহ নাই । • আহ। কি বলিব ! যদি বর্জিনিয়া এ সময়ে তোমাকে